বাংলাদেশঅপরাধ

ইভ্যালি: রাসেল দম্পতির ১০ দিন রিমান্ডে চায় পুলিশ

অর্থ আত্মসাতের অভিযোগের মামলায় আলোচিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মোহাম্মদ রাসেল এবং তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনকে (প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান) ১০ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেছে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা।

শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে এ রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। এদিকে জানা গেছে আজ বিকেল ৩টার দিকে ঢাকা মহানগর হাকিম আতিকুল ইসলামের আদালতে ইভ্যালির (এমডি) মোহাম্মদ রাসেল এবং তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনের (প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান) রিমান্ড শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে ব্রিফিংয়ে র‌্যাব জানিয়েছে, নতুন গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে পুরনো গ্রাহকদের অল্প পণ্য ফেরত দিয়ে ব্যবসা করাই ছিল তার উদ্দেশ্য। রাসেল গ্রাহকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে সাভারে কোটি কোটি টাকার সম্পদ গড়েছেন নিজের নামে। এমডি ও চেয়ারম্যান আরাম-আয়েশে থাকলেও শেষদিকে কর্মচারীদের ঠিকমতো বেতনও দিত না লোকসানি এ প্রতিষ্ঠান বলেও জানায় র‌্যাব।

র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জানান, ব্যবসায়িক বিক্রি বাড়াতে গ্রাহকদের প্রতিনিয়ত চাহিদা তৈরি হয় এ ধরনের পণ্যকে বেছে নেয় ইভ্যালি। যেমন- মোবাইল, টিভি, ফ্রিজ, এসি, মোটরবাইক, গাড়ি, গৃহস্থালিপণ্য, প্রসাধনী, প্যাকেজ ট্যুর, হোটেল বুকিং, জুয়েলারি, স্বাস্থ্যসেবা সামগ্রী ও ফার্নিচার ইত্যাদি। এসব পণ্যের মূল্য ছাড়ের ফলে ব্যাপক চাহিদা তৈরি হয়। ধীরে ধীরে প্রতিষ্ঠানের বিশাল আকারে দায় তৈরি হয়।

ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, গ্রেপ্তার রাসেল ও তার স্ত্রীর ব্যবসায়িক অপকৌশল ছিল নতুন গ্রাহকের ওপর দায় চাপিয়ে দিয়ে পুরাতন গ্রাহক ও সরবরাহকারীর দায়ের (লায়াবেলিটিস) অল্প অল্প করে পরিশোধ করা। প্রতিষ্ঠানটির নেওয়ার্কে যত গ্রাহক তৈরি হত, দায় (লায়াবেলিটিস) তত বাড়ত। গ্রেপ্তার রাসেল জেনেশুনে এ নেতিবাচক স্ট্র্যাটেজি গ্রহণ করেন বলে জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন।

বাংলাটিভি/ সাকিব

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button