দেশবাংলাঅপরাধআইন-বিচার

কবিরাজের ভূল চিকিৎসায় পা হারাতে হলো ১৬ দিনের শিশু অনিকের

মাত্র ১৬ দিন বয়সের শিশু অনিকের পা কেটে ফেলতে হলো, স্থানীয় এক কবিরাজের  ভুল চিকিৎসায়। কবিরাজির পাশাপাশি তিনি ফার্মেসীতে ঔষধ বিক্রি করেন। শিশু অনিকের বিরামহীন কান্না  থামাতে, কবিরাজ দেব কিশোর, ওরফে ধীমান সরকার এর কাছে গেলে, তিনি কান্না থামাতে পরপর দুইদিন একই পায়ে ইনজেকশন পুশ করেন। এতে পচঁন ধরলে কেটে ফেলতে হয় পা। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের আব্দুল্লাহ্পুর মধ্যপাড়া এলাকায়।

কেরানীগঞ্জের কলাকান্দি এলাকার কথিত ডাক্তার ও কবিরাজ দেব কিশোর ওরফে ধীমান। কবিরাজির পাশাপাশি ফার্মেসিতে ঔষধ বিক্রি করেন। সম্প্রতি ৬ দিন বয়সী শিশু অনিককে চিকিৎসার জন্য, স্থানীয় কবিরাজ কিশোরের কাছে নিয়ে গেলে তিনি ঝারফুক ও ট্রাইজন নামে একটি ইনজেকশন পুশ করেন। বাসায় নিয়ে যাবার পর কান্না আরো বেড়ে গেলে,  আবারও কবিরাজের শরনাপন্ন হন। দ্বিতীয় দিনও তিনি আরও একটি ইনজেকশন দেন। তৃতীয় দিন শিশু অনিকের পা ফুলে যাওয়ায়, কবিরাজ কিশোর ঢাকা মেডিকেলে দেখাতে বলেন।

অনিককে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির পর শিশুটির অবস্থার অবনতি হলে, ধানমন্ডি মাদার কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখানে চিকিৎসকরা জানান,শিশু অনিকের ডান পায়ের হাড়ে পচঁন ধরেছে। পা কেটে ফেলা ছাড়া আর কোন উপায় নেই। অবশেষে গত ২৬ সেপ্টেম্বর শিশুটির পা কেটে ফেলা হয়। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা-মা ও স্থানীয়রা, কবিরাজের বিচার দাবীর পাশাপাশি, তাদের আদরের সন্তানকে বাঁচাতে বিত্তবানদের সহায়তা চেয়েছেন।

নিজেকে পল্লী চিকিৎসক দাবী করে কবিরাজ ধীমান বলেছেন, চিকিৎসায় তার ৩০ বছরের অভিঞ্জতা রয়েছে। অপ-চিকিৎসক ও নামধারী ডাক্তারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছেন কেরানীগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।

কোন অপ-চিকিৎসায় অনিকের মত আর যেন কোন সন্তানকে পা হারাতে না হয়, সে বিষয়ে প্রশাসনের নজরদারী বাড়ানোর দাবী, ভুক্তভোগীদের।

ডেস্ক রিপোর্ট/বাংলা টিভি/এস

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button