দেশবাংলা

ভারপ্রাপ্ত ও অতিরিক্ত কর্মকর্তা দিয়ে চলছে তালতলী উপজেলা পরিষদ

বরগুনার তালতলী উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের ২৩ দপ্তরের ১৮টিই চলছে ভারপ্রাপ্ত ও অতিরিক্ত কর্মকর্তা দিয়ে।

এ কারণে একদিকে যেমন দপ্তরগুলোতে কর্মকর্তা ও জনবল নিয়োগ না হওয়ায় খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে উপজেলা প্রশাসনের কার্যক্রম। অন্যদিকে অফিসগুলোতে বিভিন্ন দৈনন্দিন কার্যক্রম না হওয়ার কারণে ভোগান্তিতে পরছে সাধারণ মানুষ।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ২০১২ সালে আমতলী উপজেলাকে বিভক্ত করে পচাঁকোড়ালিয়া, ছোটবগী, শারিকখালী, কড়াইবাড়িয়া, বড়বগী, নিশানবাড়িয়া ও সোনাকাটা ইউনিয়ন নিয়ে তালতলীকে পুর্নাঙ্গ উপজেলা করা হয়।

উপজেলা হওয়ার পর থেকে উপজেলা সাব রেজিস্টার অফিস ও উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিস এখনও আসেনি। ২৩টি দপ্তর দিয়ে চালু হয়েছে তালতলী উপজেলা।

এ ২৩টি দপ্তরের মধ্যে কর্মকর্তা রয়েছে খাদ্য নিয়ন্ত্রণ, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস, মৎস্য অফিস, প্রাণী সম্পদ ও আনসার ভিডিপি অফিসে।

বাকী ১৮টি দপ্তরের মধ্যে ইউএনও অফিস, এসিল্যান্ড অফিস, স্বাস্থ্য ও পঃপঃ অফিস, উপজেলা প্রকল্প অফিস, উপজেলা প্রকৌশলী

অফিস ও উপজেলা নির্বাচন অফিসসহ ১৩টি গুরুত্বপূর্ণ অফিস চলছে পার্শ্ববর্তী উপজেলার কর্মকর্তাদের মাধ্যমে অতিরিক্ত দায়িত্ব দিয়ে।

এছাড়াও বাকী ৫টি দপ্তর চলছে অন্য অফিসের কর্মকর্তাদেরকে ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব দিয়ে।

নেই এ উপজেলায় উপজেলা চেয়ারম্যানও। গত ৮জুলাই স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে উপজেলা চেয়ারম্যানকে

অপসারণ করেন। এরপর ৪মাস অতিবাহিত হলেও ঐ মন্ত্রণালয় কাউকে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেয়নি।

ফলে টিআর কাবিখাসহ আটকে আছে এ উপজেলার বেশ কয়েকটি উন্নয়ন কার্যক্রম।

বাংলাটিভি/এসএম/এবি||বেলাল হোসেন মিলন বরগুনা||

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close