দেশবাংলা

নরসিংদীতে দু-গ্রুপের সংঘর্ষে নিখোঁজ ২ জনসহ ৩ লাশ উদ্ধার

||শরীফ ইকবাল রাসেল, নরসিংদী||
নরসিংদীর রায়পুরার চরাঞ্চল বাঁশগাড়ী ও নিলক্ষা এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনায় নিখোঁজ দুই জনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২২ নভেম্বর) সন্ধ্যায় আব্দুল হাই ও কাউছার নামে দুজনের মরদেহ মেঘনা নদী থেকে উদ্ধার করা হয়।

নরসিংদীর রায়পুরার চরাঞ্চলে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে পূর্ব শত্রুতার জেড়ধরে দু’দল গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে তোফায়েল হোসেন, সোহরাব হোসেন ও স্বপন নামের তিন ব্যক্তি নিহত হয়। গত শুক্রবার সকালে উপজেলার দুর্গম চরাঞ্চল বাঁশগাড়ীতে প্রথম এই সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। এসময় গুলিবিদ্ধসহ ৫০ ব্যক্তি আহত হয়।

দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বাঁশগাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাবেক সভাপতি সিরাজুল হক ও সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা শাহেদ সরকারের সমর্থকদের মধ্যে এ বিরোধ চলে আসছিলো।

এ বিরোধের জেড়ধরে এ বছরের মার্চ মাসে মারা যান এক পক্ষের নেতা শাহেদ সরকার। এর ৪০ দিন পর মারা যান অপর পক্ষের নেতা সিরাজুল হক।

এরপর থেকে সিরাজুল হক সমর্থকদের ভয়ে এলাকা ছাড়া শাহেদ সরকার সমর্থকরা। দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর গত ১৬ নভেম্বর (শুক্রবার) সকালে শাহেদ সরকার সমর্থকরা এলাকায় ফিরলে প্রতিপক্ষ সিরাজুল হকের সমর্থকরা আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে তাদের উপর হামলা চালায়। এসময় উভয় পক্ষের সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ৪ জনকে অবস্থায় নরসিংদী সদর হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসকরা তোফায়েল হোসেন নামে এক স্কুল ছাত্রকে মৃত ঘোষণা করেন । গুরুতর আহতাবস্থায় ৩ জনকে ঢাকা মেডিকেলে পাঠানো হয়। এই ঘটনায় চরাঞ্চল নিলক্ষায় সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়লে এই এলাকার সোহরাব হোসেন নামে আরেক যুবক নিহত হয়েছেন। পরে গুলিবিদ্ধ স্বপন নামে আরেক যুবক ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যায়।

এছাড়া সকালে তানভীর আহমেদ নামের এক কলেজ ছাত্রের লাশ নরসিংদী শহরের বীরপুর মহল্লা থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত তানভীর আহমেদ বীরপুর এলাকার নাসির উদ্দিন খানের ছেলে। সে এবার নটরডেম কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিল।

পুলিশ ও নিহতের পরিবার জানান, স্কুল শিক্ষক নাসির উদ্দিন খানের এক ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে তানভীর আহমেদ সবার বড়। চলতি বছর সে নটরডেম কলেজ থেকে জিপিএ ৫ পেয়ে এইচএসসি পাস করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিল। বৃহস্পতিবার সকালে সে ট্রেনে করে ঢাকা যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হয়। সকালে বীরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে রেল লাইনের ধারে বুকে ছুরিকাঘাত করা একটি লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে খবর দেয়। খবর পেয়ে নিহতের বাবা তানভীর আহমেদের লাশ সনাক্ত করেন।

তিনি জানান, তানভীরই আমার একমাত্র সম্পদ ছিল। সেটাও তারা কেড়ে নিল। আমার কিংবা আমার ছেলের কোন শত্রু ছিল না। লাশ উদ্ধারের সময় তাঁর সাথে থাকা একটি ব্যাগ ও দামি মোবাইল ফোনটি খোয়া গেছে। ধারনা করা হচ্ছে মোবাইল ও ব্যাগ কেড়ে নিতেই ছিনতাইকারীরা তাকে হত্যা করেছে।

নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এস আই) মো. শাহালম বলেন,‘নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্যে নরসিংদী সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ধারনা করা হচ্ছে ছিনতাইকারীরাই তাঁর মোবাইল ও ব্যাগ ছিনতাই করতেই এ হত্যাকান্ডটি ঘটিয়েছে।

বাংলাটিভি/এসএম/এবি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close