খেলাধুলাফুটবল

সেই পিএসভিকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বার্সা

শুরুতে ন্যু ক্যাম্পে পিএসভি আইন্দহোফেনকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে চলতি মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগ শুরু করেছিল বার্সেলোনা। যেখানে লিওনেল মেসি করেছিলেন হ্যাটট্রিক। ফিরতি লেগে নিজেদের মাঠেও মেসির কাছেই হেরে গেল পিএসভি। এর ফলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নকআউট পর্বে গেছে বার্সেলোনা।

দলকে জেতাতে প্রথম গোলটি করেন লিওনেল মেসি। দ্বিতীয়টি পিকের। এতেই নিশ্চিত হয়ে পিএসভিকে ২-১ গোলে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ান।

প্রথমার্ধ গোলশূন্য থাকার পর দ্বিতীয়ার্ধের ৬১তম মিনিটে এগিয়ে যায় বার্সা।

ডেম্বেলের সঙ্গে বল দেওয়া-নেওয়া করে বাঁ পায়ের জোরালো শটে কাছের পোস্ট দিয়ে জাল খুঁজে নেন মেসি। এই গোলে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে (১০৫, রিয়াল মাদ্রিদ) পেছনে ফেলে চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসে একক কোনো ক্লাবের হয়ে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ডটা নিজের করে নিলেন পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী তারকা (১০৬, বার্সেলোনা)।

নিজেদের মাঠে বার্সাকে অবশ্য ম্যাচের শুরু থেকেই চেপে ধরেছিল পিএসভি। ১৬ মিনিটের মধ্যেই অন্তত দুই গোলে এগিয়ে যেতে পারত তারা। কিন্তু চতুর্থ মিনিটে পিএসভির পেরেইরোর ফ্রি-কিক ঝাঁপিয়ে পড়ে ঠেকান বার্সার গোলরক্ষক মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেন। ১৬ মিনিটে ২০ গজ দূর থেকে আবার পেরেইরোর জোরালো শট, এবার বল ফেরে পোস্টে লেগে। ২৪ মিনিটে ডি ইয়ং সুযোগ নষ্ট করলে আরেকবার হতাশ হতে হয় স্বাগতিক সমর্থকদের। ৩৫ মিনিটে এগিয়ে যেতে পারত বার্সা। কিন্তু ব্রাজিলিয়ান প্লে-মেকার কুতিনহোর শট ফেরে প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড়ের গায়ে লেগে। পরের মিনিটে সুযোগ আসে আবারো। এবার আর্তুরো ভিদালের দুটি শট লাইন থেকে ফিরিয়ে দেন ফিলিপ রোসারিও। বিরতির আগে আরেকবার ভাগ্যের জোরে বেঁচে যায় বার্সা। ডি ইয়ংয়ের হেড ফেরে ক্রসবারে লেগে। ফলে গোলশূন্য স্কোরলাইনেই শেষ হয় প্রথমার্ধের খেলা।

৭০তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন পিকে। মেসির ফ্রি কিকে স্পেনের এই ডিফেন্ডার পা ছোঁয়ালে বল গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে জালে জড়ায়।

দুই গোলে পিছিয়ে পড়ার পর ফেরার চেষ্টা করে পিএসভি। ৮২ মিনিটে ডি ইয়ংয়ের গোলে ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিতও দেয় তারা। কিন্ত বাকি সময়ে আর কোনো গোল না পাওয়ায় ঠিকই পরাজয় বরণ করে নিতে হয় তাদের।

গ্রুপের আরেক ম্যাচে ক্রিস্টিয়ান এরিকসেনের একমাত্র গোলে ইন্টার মিলানকে হারিয়ে শেষ ষোলোর আশা বাঁচিয়ে রেখেছে টটেনহাম। পাঁচ ম্যাচে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপের শীর্ষে আছে বার্সেলোনা। ৭ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে টটেনহাম। সমান পয়েন্ট নিয়ে মুখোমুখি লড়াইয়ে পিছিয়ে তিনে আছে ইন্টার মিলান। ১ পয়েন্ট নিয়ে তলানিতে পিএসভি। এই গ্রুপ থেকে শেষ ষোলোয় বার্সেলোনার সঙ্গী টটেনহাম নাকি ইন্টার মিলান হবে, তা জানতে অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে শেষ ম্যাচ পর্যন্ত।

বাংলাটিভি/এসএম/এবি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close