দেশবাংলা

টঙ্গীর জাভান হোটেলে অভিযানে গ্রেফতার ৩

||তাওহীদ কবির, টঙ্গী||

গাজীপুর মহানগরের টঙ্গীর আমতলী এলাকায় জাভান হোটেলে সরকারী শুল্ক ফাঁকি দিয়ে অবৈধ মদসহ বিভিন্ন নেশাজাতীয় দ্রব্য বিক্রির অভিযোগে জাভান হোটেলে অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব-১ ও ৩ এর সদস্যরা।

এসময়, সরকারী অনুমোদনহীন মদ বিয়ারসহ বিভিন্ন মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয় ও হোটেলে অসামাজিক কার্যক্রম পরিচালনার অভিযোগে ৩ জনকে আটকসহ তাদের হেফাজত থেকে আনুমানিক প্রায় ৫ লাখ টাকার মদ ও বিয়ার উদ্ধার করেছে।

র‌্যাব-৩ সুত্রে জানা যায়, সোমবার রাত সাড়ে ১১টায় দিকে র‌্যাব-১ ও ৩ এর সমন্বয়ে একটি একটি দল জাভান হোটেলে সুনিদিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালায়। এ সময়, জাভান হোটেল থেকে প্রায় ৫ লাখ টাকা মূল্যের ৬০ বোতল বিদেশী মদ ও ১০ কেস বিদেশী বিয়ারসহ ৩ জনকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন জাভান হোটেলের ডিজে ফ্লোর ম্যানেজার হিমু (৪৭), হোটেলের মার্কেটিং ম্যানেজার লিয়াকত হোসেন (৫০) ও রিসিপশনের শহীদ (৩৪) নামে ৩ জনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

এলাকাবাসীদের অভিযোগ, লাইসেন্স না নিয়ে অবৈধভাবে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে প্রকাশ্যে হোটেলটিতে মদ ও বিয়ারসহ বিভিন্ন মাদক বিক্রি করা হতো। সেখানে প্রতি রাতে ডিজে পার্টিসহ নানা ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ চলতো। এখানে বেশিরভাগই রাজধানীর উত্তরা, আব্দুল্লাহপুর, টঙ্গী, জয়দেবপুর ও কালিগঞ্জ এলাকার মাদকাসক্ত কিশোররা মাদকের আসরে অংশ নেয়।

দিনভর স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা ক্লাস ফাঁকি দিয়ে এখানে মদ ও বিয়ারসহ বিভিন্ন মাদক সেবন করার সুযোগ পায়। রাতে ডিজে পার্টিতে অংশ নেয় অত্র অঞ্চলের বিভিন্ন অপরাধী ও মাদকসেবীরা। ভেতরে পার্টি চলাবস্থায় স্থানীয় প্রশাসন নিয়মিত মাসোহারার বিনিময়ে পুলিশী পাহারার ব্যবস্থা করে থাকে।

এ ব্যাপারে হোটেলের মালিক বাদল ওরফে জার্মান বাদলের মুঠোফোনে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে গাজীপুর জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ুন কবীর জানান, এ ধরনের হোটেল আছে বলে আমার কিছু জানা নেই, যদি এটা সত্যি হয় তবে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে। সরকারী অনুমতি ব্যতিত এধরনের কোন হোটেল চলতে পারে না। আমি বিষয়টির খোজ নিয়ে দেখছি।

বাংলাটিভি/এবি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close