দেশবাংলা

বাঘাশাহী মসজিদকে পর্যটন নগরী বাস্তবায়নসহ সংরক্ষণের দাবী

||বিজয় ঘোষ, রাজশাহী||

প্রায় ৫০০ বছরের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের অনন্য নিদর্শন,রাজশাহীর বাঘাশাহী মসজিদ। বাগদাদ থেকে ইসলাম প্রচার করতে আসা হযরত শাহ্ মোয়াজ্জেম  ওরফে শাহ্ দৌল্লার সম্মানে মসজিদটি নির্মাণ করেছিলেন,সুলতান নাসির উদ্দিন নাফরাত শাহ্।

প্রতিদিন দুর দুরান্ত থেকে ভক্ত ও দর্শনার্থীরা আসেন, ঐতিহ্যপূর্ণ এ নিদর্শন দেখতে।  মসজিদটি পর্যটন নগরী বাস্তবায়নসহ সংরক্ষণের দাবী স্থানীয়দের।

মসজিদটি রাজশাহী শহর থেকে ৪৮ কিলোমিটার দক্ষিণ ও পূর্ব দিকে অবস্থিত। এই মসজিদের ছবি ৫০ টাকার পুরনো নোটে ছাপা ছিলো। চারদিক প্রাচীর দিয়ে ঘেরা আর টেরাকোটা কারুকাজ সজ্জিত বাঘা মসজিদটি ১৫২৩ সালে নির্মিত হয়।

এর দৈর্ঘ্য ৭৫ ফুট ও চওড়া ৪২ ফুট। উঁচু ২৪ ফুট ৬ ইঞ্চি। মসজিদের ১০ টি গম্ভুজ আর ৬ টি স্তম্ভে কারুকাজ মন্ডিত চারটি মেহেরাফ রয়েছে। মসজিদের পাশেই ৫২ বিঘা আয়তনের বিশাল দিঘী রয়েছে। মসজিদে প্রবেশের জন্য আছে ৫ টি দরজা।

মসজিদের আঙ্গিনায় রয়েছে হযরত শাহ্ দৌলা ও তার সঙ্গীদের মাজার। প্রতি শুক্রবার দূর দুরান্ত থেকে জুমআ’র নামাজ আদায় করতে আসেন মুসুল্লিরা। এছাড়াও দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সব শ্রেনী পেশার মানুষ মসজিদটি দেখতে আসেন।মসজিদটি পর্যটন নগরী হিসেবে বাস্তবায়নসহ সংরক্ষণের দাবী এলাকাবাসীর।

৫০০ বছরের পুরানো ঐতিহ্য এ অঞ্চলকে আরো সমৃদ্ধ করেছে বলে জানায় মসজিদ পরিচালনা কমিটি। সার্বিক নিরাপত্তা ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ মোতায়েনের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানান বাঘা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহসীন আলী।

দেশের অন্যতম প্রধান এই মসজিদটি পর্যটন নগরী বাস্তবায়ন করাসহ সংস্কার ও সংরক্ষণ করা হবে এমন প্রত্যাশা সবার।

বাংলাটিভি/এবি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close