দেশবাংলা

শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ

মাদারীপুর শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুটের ২টি চ্যানেলের প্রবেশমুখে বড় ধরনের ডুবোচর ও তীব্র নাব্যতা সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে সারাদিনে ৩টি ছোট ফেরি দিয়ে কোনমতে জরুরী এ্যাম্বুলেন্স পারাপার হলেও, গত ২দিন ধরে সকল ফেরি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

পারাপারে বিলম্ব হচ্ছে সকল নৌযান। দীর্ঘ অচলাবস্থায় কাঁচামালে পচন ধরায়, প্রভাব পড়ছে বাজার দরে। এ পরিস্থিতির জন্য ফারাক্কা বাঁধের অতিরিক্ত পানি ও নদী ভাঙ্গনকেই দায়ী করছে বিআইডব্লিউটিএ।

অস্বাভাবিকহারে পানি বৃদ্ধি পেতে শুরু করলে মধ্য জুলাই থেকে এ রুটের পদ্মা নদীতে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়।একে একে এ রুটের স্বল্প দূরত্বের মূল চ্যানেল ২টি বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু গেল সেপ্টেম্বর থেকে বিকল্প এ চ্যানেলে পলি পড়ে নৌরুটের লৌহজং টার্নিং পয়েন্টে নাব্যতা সংকট প্রকট আকার ধারন করায়, ব্যাহত হচ্ছে ফেরি চলাচল।

গত এক সপ্তাহ ধরে ২য় দফায় পদ্মায় পানি বেড়ে আবারো কমতে শুরু করলেও, উজানে তীব্র নদী ভাঙ্গন, পলি ও তীব্র স্রোতে লৌহজং টার্নিং সরু হয়ে চরম ঝুঁকিপূর্ন হয়ে পড়েছে।

কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া রুটে ১৮টি ফেরি থাকলেও নানা সংকটে চলাচল ব্যহত হওয়ার পাশাপাশি, দীর্ঘসময় বন্ধ থাকছে ফেরি চলাচল। ফলে দূর্ভোগ পিছু ছাড়ছে না এ নৌরুট ব্যবহারকারীদের।

সংশ্লিষ্টরা তুলে ধরেন নৌরুটের অচলাবস্থার চিত্র। এদিকে এ পরিস্থিতির জন্য ফারাক্কা বাঁধের অতিরিক্ত পানি ও নদী ভাঙ্গনকে দায়ী করছেন বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান কমডোর মাহবুব উল ইসলাম।

প্রতিবছর সরকার কোটি কোটি টাকা ড্রেজিং এ খরচ করলেও, তেমন কোন সুফল পাচ্ছেননা ভুক্তভোগীরা। বিষয়টি খতিয়ে দেখার দাবি দক্ষিনাঞ্চলবাসির।

মেহেদী হাসান সোহাগ, মাদারীপুর প্রতিনিধি 

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close