বিশ্ববাংলা

স্পেনে প্রবাসীদের পাশে বাংলাদেশি সংগঠন ’হেল্পিং হ্যাণ্ড’

স্পেনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিপুল সংখ্যক মানুষ মারা যাওয়ার পর, সরকারের গৃহীত নানা সতর্কতামূলক পদক্ষেপের কারণে, সম্প্রতি দেশটিতে কমতে শুরু করেছে করোনা সংক্রমণের পরিমাণ। আগামীতে আরো কমবে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেছেন দেশটির নেতৃবৃন্দ।

অপরদিকে, স্পেনে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের সংগঠন “হেল্পিং হ্যাণ্ড” করোনা দুর্গত প্রবাসীদের জন্য প্রাইভেট আইসোলেশনসহ, অসহায় প্রবাসীদের থাকা খাওয়া নিশ্চিত করতে কাজ করে যাচ্ছে।

করোনার আক্রমণে ক্ষত-বিক্ষত স্পেন সেরে উঠতে শুরু করেছে। আশার আলো দেখছে সরকার। আগামী ২৬ এপ্রিল থেকে স্পেনের নাগরিকরা তাদের স্বাভাবিক জীবন ফিরে পাবে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেছেন দেশটির অর্থমন্ত্রী মারিয়া খেসুস মনতেরো। তবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী সালভাদর ইলা মন্তব্য করেছেন, “আমরা এখনো জানি না ২৬ এপ্রিল থেকে আমরা কী পদক্ষেপ নেবো।”

গত বৃহস্পতিবার দেশটির পার্লামেন্টে লকডাউনের মেয়াদ বৃদ্ধি বিষয়ক আলোচনার সময়, দেশটির প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো স্যাঞ্চেজ বলেন, “করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের সবচেয়ে ভয়াবহ সময় পেরিয়ে যাওয়ার কাছাকাছি রয়েছে স্পেন। আগুন নিয়ন্ত্রণে আসতে শুরু করেছে। এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে স্পেন সম্পূর্ণ বিজয়ী হবে।”

অপরদিকে, স্পেনে অবস্থানরত স্বেচ্ছাসেবী বাংলাদেশি প্রবাসীরা গঠন করেছেন “হেল্পিং হ্যাণ্ড” নামে একটি সংগঠন। এই সংগঠনের পক্ষ থেকে করোনা সংক্রমিতদের জন্য প্রাইভেট আইসোলেশনের ব্যাবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া, করোনার প্রভাবে বেকার ও অসহায় হয়ে পড়া বাংলাদেশী প্রবাসীদের থাকা খাওয়া নিশ্চিত করতেও সংগঠনটি কাজ করে যাচ্ছে।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত স্পেনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৮০ জন বাংলাদেশি। রাষ্ট্রীয় সতর্কতা দ্বিতীয়বারের মত বেড়ে, বর্তমানে ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত জারি আছে। তবে দেশটির প্রেসিডেন্ট পেদরো সানচেস জানান, রাষ্ট্রীয় সতর্কতার মেয়াদ আবারও বাড়িয়ে ১২মে পর্যন্ত করা হতে পারে।

লোকমান হোসেন, স্পেন প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close