বাংলাদেশ

প্রকৌশল শিক্ষার বাতিঘর ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা জাতীয় অধ্যাপক প্রকৌশলী ড. জামিলুর রেজার মৃত্যুতে অপূরণীয় ক্ষতিতে বাংলাদেশ। পরিবেশ আন্দোলনের পাশাপাশি দেশের শিক্ষাখাত, রাজনীতি, ভৌত কাঠামোর উন্নয়নসহ অনেক ক্ষেত্রে অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরীর গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে।

ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী ১৯৪২ সালে ১৫ই নভেম্বর সিলেটে জন্মগ্রহণ করেন। সেন্ট গ্রেগরিজ স্কুলে মাধ্যমিক ও ঢাকা কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করে ভর্তি হন তৎকালীন আহসানউল্লাহ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে। ১৯৬৩ সালে প্রথম বিভাগে ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করে প্রকৌশল বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন। সাউদাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চ শিক্ষা শেষে, ফিরে আসেন বুয়েটের অধ্যাপনায়। এরপর তিনি ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৯৬ সালে বিচারপতি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমানের নেতৃত্বে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা হিসেবে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ এবং পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলেন অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী।

বিশেষজ্ঞ সিভিল ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে অসংখ্য উন্নয়ন প্রকল্পে কাজ করার পাশাপাশি, তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ে সরকারের বিভিন্ন পরামর্শক প্যানেলে ছিলেন জামিলুর রেজা চৌধুরী। বঙ্গবন্ধু সেতু, পদ্মা সেতুসহ দেশের বড় ভৌত কাঠামোতে উন্নয়ন পরামর্শক হিসেবে অদ্বিতীয় ছিলেন তিনি।

জাপান সরকারের সম্মানজনক অর্ডার অব দ্য রাইজিং সান, গোল্ড রেইস উইথ রেক রিবন খেতাবে ভূষিত এবং ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডক্টর অব ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি পাওয়া একমাত্র বাংলাদেশি জামিলুর রেজা চৌধুরী। প্রকাশিত হয়েছে প্রায় সত্তরটি গবেষণা প্রবন্ধ। ছিলেন আর্থ কোয়েক সোসাইটি, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন ও বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি।

২০১৮ সালে তাকে জাতীয় অধ্যাপক হিসেবে নিয়োগ দেয় সরকার। সর্বশেষ এশিয়া প্যাসিফিক ইউনিভার্সিটির উপচার্যের দায়িত্বে ছিলেন তিনি, একুশে পদকপ্রাপ্ত জামিলুর রেজা চৌধুরীর বর্ণাঢ্য জীবনের পথযাত্রায় সঙ্গী ছিলেন স্ত্রী সেলিনা চৌধুরী। প্রকৌশলী দুই সন্তান কারিশমা ফারহিন চৌধুরী ও ছেলে কাশিফ রেজা চৌধুরী।

বাংলা টিভি/রাসেল

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close