দেশবাংলা

আজ আহসান উল্লাহ মাস্টারের ১৬তম শাহাদৎ বার্ষিকী

ভাওয়াল বীর প্রখ্যাত শ্রমিক নেতা, সাবেক সংসদ সদস্য শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার এমপির ১৬তম শাহাদৎ বার্ষিকী করোনা ভাইরাসের কারণে সকল কর্মসূচি স্থগিত করে নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ উপলক্ষে ঢাকা ও গাজীপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে খাদ্য ও উপহার সামগ্রী বিতরণসহ কুরআন খানি ও মসজিদে মসজিদে দোয়া মাহফিলের কর্মসুচি গ্রহণ করা হয়েছে।

করোনা ভাইরাসের কারণে অন্যান্য বছরের মতো অনুষ্ঠান স্থগিত করে ছোট আকারে কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ৭ মে সকালে তার নিজ বাড়ি হায়দরাবাদ গ্রামে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের কবরে পরিবারের পক্ষ থেকে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ ও শ্রদ্ধা নিবেদন। পবিত্র কোরআনখানি, কালো ব্যাচ ধারণ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল ও ইফতার বিতরণ।

এছাড়াও পৃথক পৃথক ভাবে বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের অনুসারীরা ছোট আকারে রাষ্ট্রীয় নিয়ম মেনে দূরত্ব বজায় রেখে তৃর্ণমূল মানুষের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ। গতকাল বুধবার যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল এমপি’র নির্দেশনায় গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতি গাজীপুর মহানগরীর পূবাইলের ৩৯, ৪০, ৪১ ও ৪২ নং ওয়ার্ডের ৪টি ওয়ার্ডের করোনা ভাইরাসের কারণে লকডাউনে থাকা নিম্ন আয়ের ঘরবন্ধী মানুষের মাঝে পূবাইলের নেতাকর্মীদের মাধ্যমে খাদ্য ও উপহার সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক অধ্যক্ষ জাহিদ আল মামুন, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের সাবেক সংরক্ষিত প্যানেল মেয়র হোসনে আরা সিদ্দিকী জুলি, আওয়ামী লীগ নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মিজানুর রহমান, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৪০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আজিজুর রহমান শিরিষ, ৩৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহিনুল আলম মৃধা, ৪১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোমেন মিয়া, ৪২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুস সালাম, পূবাইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আব্দুল কাদের মিয়া, আওয়ামী লীগ নেতা হাসানুল বান্না মজু, আবুল কাশেম মেম্বার, আবুল হোসেন, আফজাল হোসেন, কাজীম উদ্দিন মাষ্টার, সাবেক পূবাইল ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য সচিব মোঃ মোস্তফা কামাল, শেখ আব্দুল হালীম, এইচ এম মামুন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার গাজীপুর-২ (গাজীপুর সদর-টঙ্গী) আসন হতে ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে দুইবার সংসদ সদস্য, ১৯৯০ সালে গাজীপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এবং ১৯৮৩ ও ১৯৮৭ সালে দু’দফা পূবাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য, শিক্ষক সমিতিসহ বিভিন্ন সমাজ সেবামূলক জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন। আহসান উল্লাহ মাস্টার শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতি ও সাধারণ সস্পাদক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

২০০৪ সালের ৭ মে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের মদদ পুষ্ট একদল সন্ত্রাসী টঙ্গীস্থ নোয়াগাঁও এম এ মজিদ মিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্বেচ্ছাসেবক লীগের একটি কর্মীসভায় প্রকাশ্যে দিবালোকে আহসান উল্লাহ মাস্টারকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। পরে ২০০৫ সালের ১৬ মে এই মামলার রায়ে ২২ জনের ফাঁসি ও ৬জনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেয়া হয়।

২০১৬ সালের ১৫ জুন হাইকোর্ট ডিভিশন আসামীদের ডেথ রেফারেন্স , জেল আপীল ও আবেদনের শুনাণি শেষে ৬ জনের মৃত্যুদন্ড বহাল এবং ৮ জনের যাবজ্জীবন বহাল রেখে ১১ জনকে খালাস দেয়। বিচার চলাকালে ২জন আসামী মারা যাওয়ায় তাদের আপীল নিষ্পত্তি করে দেয়া হয়। যাবজ্জীবন দন্ডপ্রাপ্ত একজন পলাতক আসামীর আপিল না থাকায় তার ব্যাপারে আদালত পূর্বের রায় বহাল রাখে।

শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের বড় ছেলে ও শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার স্মৃতি পরিষদের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি তার পিতার ১৬তম শাহাদৎ বার্ষিকীতে সকল কর্মসূচি বাদ দিয়ে সবাইকে তার পিতা শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের জন্য দোয়া করার জন্য বিশেষ ভাবে অনুরোধ জানিয়েছেন।

তাওহীদ কবির টঙ্গী প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close