বিশ্ববাংলা

ভিন্ন এক ইদের অপেক্ষায় মক্কা প্রবাসী বাংলাদেশিরা

লকডাউন থাকায় ঈদকে ঘিরে বাড়তি কোন আনন্দ নেই মক্কা প্রবাসী বাংলাদেশিদের। সৌদি আরবে করোনাভাইরাসে লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছে পুরো দেশ। হাতে টাকা না থাকায় দেশে টাকা পাঠাতে পারছেন না তারা। এমতাবস্থায় দেশে থাকা তাদের পরিবারগুলোর ঈদ কিভাবে কাটবে, তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন প্রবাসীরা।

মুসলিমদের ধর্মীয় তীর্থস্থান ও পবিত্র ভূমি হিসেবে পরিচিত সৌদি আরব। বিশ্বে যতই যুদ্ধ-বিগ্রহ আর দুর্যোগ দেখা দিক না কেন, সৌদি আরবে কখনও তার প্রভাব পড়েনি। কিন্তু এবারের চিত্র সম্পূর্ণ ভিন্ন। প্রতিবছর রমজান মাস জুড়ে সৌদি আরবে চলে নানা পণ্যের রমরমা ব্যাবসা।

কিন্তু এবার মুসলিমদের সর্বাপেক্ষা বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতরকে ঘিরে নেই কোনো জনসমাগম। মক্কাপ্রবাসী ব্যাবসায়ীদের মধ্যে নেই কোনো চাঞ্চল্য। গত ২ মার্চ ইরান থেকে বাহরাইন হয়ে সৌদিতে প্রবেশকারী এক ব্যক্তির শরীরে প্রথম করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। এরপর তা আস্তে আস্তে ছড়িয়ে পড়ে সমগ্র সৌদি আরবে।

ভাইরাস প্রতিরোধে সৌদি সরকার ধীরে ধীরে পুরো দেশকে লকডাউন ও কিছু কিছু জায়গায় কারফিউ ঘোষণা করেছে। মক্কা মদীনায় বন্ধ করে দেয়া হয় জামাতের নামাজ। শ্রমিকরা কাজ হারায়, ব্যাবসায়ীরা ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে গৃহবন্দী জীবনযাপন করতে শুরু করে।

দীর্ঘদিন কর্মহীন জীবনযাপনের ফলে, প্রবাসীদের জীবনে নেমে আসে অর্থনৈতিক মন্দা। দেশে টাকা পাঠানো তো দূরের কথা, ভিনদেশে নিজেদের থাকা খাওয়ার খরচ জোটাতেই তারা হিমশিম খাচ্ছেন। প্রতিবছর ঈদ উপলক্ষ্যে প্রবাসীদের পাঠানো টাকা দিয়ে ঈদের কেনাকাটা করেন, দেশে থাকা প্রবাসীদের পরিবারগুলো।

এবার প্রবাসীরা টাকা পাঠাতে না পারায় অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে এসব পরিবারের ঈদ উদযাপন। করোনাভাইরাসের ফলে সৃষ্ট মহামারী শীগগিরই বিদায় নেবে পৃথিবী থেকে, প্রবাসীদের জীবনে ফিরে আসবে স্বাভাবিক ছন্দ, এমনটাই প্রত্যাশা সৌদি প্রবাসী বাংলাদেশিদের।

এস এইচ হেমায়েত, মক্কা প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button