অন্যান্যবাংলাদেশ

ঘরে বসেই পরীক্ষা দেবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলেও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের সাময়িক পরীক্ষা নেয়া হবে। তবে এই পরীক্ষা যেন বাসায় বসে শিক্ষার্থীরা দিতে পারে সেই চিন্তা করছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

শিক্ষকরা প্রশ্ন তৈরি করে শিক্ষার্থীদের বাসায় পাঠাবেন। সেসব খাতা শিক্ষকরা মূল্যায়ন করে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের কাছে ফলাফল পৌঁছে দেবেন। এ জন্য বেশকিছু ভলেন্টিয়ার (স্বেচ্ছাসেবী) নিয়োগ দেয়া হবে বলেও জানা গেছে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন বলেন, শিক্ষার্থীদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে গত দুই মাস ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে। পরিস্থিতি অনুকূলে না আসায় আগামী ১৫ জুন পর্যন্ত ছুটি বাড়ানো হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা সম্ভব হবে না।

এ কারণে আমরা সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশনে পাঠদান কার্যক্রম শুরু করেছি। পাশাপাশি শিক্ষকরা নিয়মিত শিক্ষার্থীদের অভিভাবকের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করে পড়ালেখার বিষয়ে খোঁজখবর নিচ্ছেন। শিক্ষার্থীদের বাসায় রেখে কীভাবে পরীক্ষা নেয়া যায় কথা চিন্তা করছি।

সচিব আরো বলেন, গত ১৫ এপ্রিল থেকে ২৪ এপ্রিলের মধ্যে প্রাথমিকের প্রথম সাময়িক পরীক্ষা হওয়ার কথা থাকলেও তা স্থগিত করা হয়েছে। দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা আগামী ৯ আগস্ট থেকে শুরু করার কথা থাকলেও তা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এই কারণে শিক্ষার্থীরা যাতে বাসায় বসে পরীক্ষা দিতে পারে সে ব্যবস্থা করা হতে পারে।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষার রুটিনে দেখা গেছে, প্রথম শ্রেণি থেকে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত প্রথম সাময়িক পরীক্ষা- ১৫ থেকে ২৪ এপ্রিলের মধ্যে, দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা- ৯ থেকে ২০ আগস্টের মধ্যে, প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা- ১৯ থেকে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে। এ ছাড়া ১ম থেকে ৪র্থ শ্রেণি পর্যন্ত বার্ষিক পরীক্ষা ২ থেকে ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close