বাংলাদেশ

‘গ্লোবাল ল থিংকার্স সোসাইটি’ বিশেষ সম্মাননা পেল ‘ওয়াল্ড বুক অফ রেকর্ডস’ থেকে

বিশ্বের বুকে নতুন রেকর্ড তৈরি করে ‘গ্লোবাল ল থিংকার্স সোসাইটি’ বিশেষ সম্মাননা পেল ‘ওয়াল্ড বুক অফ রেকর্ডস’ থেকে। “ওয়াল্ড বুক অফ রেকর্ডস লিমিটেড” যারা বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ওয়ার্ল্ড রেকর্ড পর্যবেক্ষণ করেন এবং যাচাই-বাছাই করে সেরা রেকর্ডকে স্বীকৃতি প্রদান করে থাকে। তেমনই “গ্লোবাল ল থিংর্স সোসাইটি” ওয়াল্ড বুক অফ রেকর্ডস থেকে বিশেষ সম্মাননা অর্জন করেছেন। যেখানে সম্মাননার উল্লেখযোগ্য বিষয় ছিল: বিশ্বের সব থেকে বড় অনলাইন দুইদিন ব্যাপী এবং ২৪ ঘন্টা ‘ভার্চুয়াল ইয়থ সামিথ’ ম্যারাথন প্রোগ্রাম। ওই ভার্চুয়াল সামিথে ১০০০ জন নির্দিষ্ট সময়ে অনলাইনে সম্পৃক্ত ছিল। যার পিছনের গল্পে নেতৃত্বে ছিল স্বপ্নদ্রষ্টা রাওমান স্মিতা এবং বাস্তবায়ন করেছেন একদল বাংলাদেশি তরুণ। তাদের সাথে ছিল বিশ্বের ১০০ টি দেশ ও আন্তর্জাতিক ৫৫ জন বক্তা।

মানবতা ও যুব উন্নয়নমূলক আন্তর্জাতিক সংগঠন ‘গ্লোবাল ল থিংকার্স সোসাইটি’-এর উদ্যোগে আয়োজিত ১৭ই ও ১৮ই জুলাই দুইদিন ব্যাপী আন্তর্জাতিক অনলাইন সম্মেলন “ভার্চুয়াল ইয়ুথ সামিট অ্যান্ড লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড ২০২০: ‘ফাইট করোনা উইন ফিউচার” স্লোগানে অনুষ্ঠিত হয়েছে। যেখানে বিশ্বের তরুণদেরকে নেতৃত্বদানে ও টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য মাত্রা অর্জনে একত্রিত করা হয়েছে। ২৪ ঘন্টার এই ম্যারাথন সামিথ যা এই করোনাকালীন সময়ে শুধু বাংলাদেশে নয়, বিশ্বে প্রথম।

১৭ই জুলাই সকাল ১১টায় তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান প্রধান অতিথি হিসেবে সামিটের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। ১৮ই জুলাই অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মালয়েশিয়ার যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী ওয়ান আহমাদ ফয়সাল। রাতে মালয়েশিয়ার সেলানগর স্টেট অ্যাসেম্বলি রিপ্রেজেন্ট এবং সেলানগর স্টেট এক্সিকিউটিভ কাউন্সিল মেম্বার ‘গনবতিরাও ভেরামান’ প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানের সমাপনী ঘোষণা করেন।

ভার্চ্যুয়াল ইয়ুথ সামিটের আলোচ্য বিষয় ছিল সুস্বাস্থ্য ও মানবিক সমৃদ্ধি , টেকসই উন্নয়ন ও মানবাধিকার, শিক্ষা ও ইকোনমি এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি। এছাড়া যুব পর্যটন, বিশ্ব সংস্কৃতি আদান-প্রদান, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, জলবায়ু পরিবর্তন, শান্তি ও ন্যায়বিচার নিশ্চিতকরণ ও সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে বিভিন্ন সেশনে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সবশেষে বিশ্বের তরুণ নেতাদের গোলটেবিল আলোচনা সভা এবং ভার্চ্যুয়াল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সমাপনী ঘোষণা করা হয়।

‘গ্লোবাল ল থিংকার্স সোসাইটি’এর স্বপ্নদ্রষ্টা এডভোকেট প্রেসিডেন্ট রাওমান স্মিতা তার বক্তব্যে বলেন, এই করোনাকালীন সময়ে আমাদের এই উদ্যোগ সবাইকে সাহস যোগাবে এবং এই সংগঠন দক্ষ মানব সম্পদ তৈরীতে কাজ করে যাবে। এবং আরও বলেন আমরা করোনা মহামারীতে ঘর বন্দি হয়ে আছি, তার মানে এই না আমাদের কিছুই করার নেই। ইন্টারনেট আমাদের হাতের মুঠোয়। ভার্চুয়াল প্রোগ্রামের মাধ্যমে আমরা ইন্টারন্যাশনাল গ্লোবাল ভিলেজ তৈরি করতে পারি। যেখানে তরুণরা মুক্তমনে প্রযুক্তির সাথে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের মাধ্যমে নিজেদের দক্ষতা বাড়াবে। তিনি সম্মানিত প্রধান অতিথি, বিশেষ অতিথি সহ সমস্ত স্পীকার, সংগঠনের প্রতিটি সদস্য এবং সকল অনলাইন অতিথিদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

সংগঠনের জেনারেল সেক্রেটারী এডভোকেট খালেদ মাসুদ তার বক্তব্যে পৃথিবীর তরুনদের সমস্ত প্রতিকুলতা মোকাবেলা করে জয়ের জন্য এগিয়ে আসার আহবান জানান। তিনি বলেন, করোনা থেকে জয়ের জন্য একমাত্র তরুনদেরকেই সাহসী ভূমিকা পালন করতে পারবেন। চতুর্থ শিল্প বিপ্লব তখনই সার্থক হবে যখন তরুণরা উন্নত বিশ্বের সাথে ভালো সম্পর্ক স্থাপন করবে এবং নতুন প্রযুক্তিকে সময়ের সাথে গ্রহণ করতে পারবেন।

১৮ জুলাই ভার্চুয়াল ইয়ুথ সামিট অ্যান্ড লিডারশীপ অ্যাওয়ার্ড ২০২০ কর্মসূচিতে বিশ্বের ২২ জন তরুনকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে লিডারশীপ অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়েছে। তাদের নামসহ ক্যাটাগরি উল্লেখ করা হলোঃ মাহিন মেহরাব (ইয়ুথ আইকন), ডক্টর জুনিয়াস সিলভা( লিডারশীপ), হাম্মাদ খান( শান্তি), মোহাম্মদ এমতিয়াজ(শিক্ষা), আরভেনড এপলাসামি( সোশ্যাল ওয়ার্ক), শুভ্রদেব হালদার( স্বাস্থ্য), ডাঃ মহসিন কামাল ( শান্তি), তাসমিহা নুহিয়া আহম্মেদ ( ডেমোক্রেসি), মোহাম্মদ সায়েদ( শিক্ষা), শেখ ইনজামামুজ্জামান( শিক্ষা), ভিক্টোরিয়া পি সোরিয়ানো( লিডারশীপ), অতুল ধীর ( পরিবেশ), থারাকা নন্দসুরিয়া( লিডারশীপ), শোয়েতা মজুমদার ( সোশ্যাল ওয়ার্ক), আব্দুলালেম আঞ্জোলাওলুওয়া আডিমোলা ওসিনুগা (এন্টারপ্রিনিউরশিপ), অমিলা রুমেশ জোসেফ ( লিডারশীপ), গামিনি মুহান্দিরাম ( লিডারশীপ), শ্রেয়ান্থ কুরে (লিডারশীপ), ফারজিন মোহামেদ (লিডারশীপ), মোহাম্মদ আব্বাস (শান্তি), নাজরিন ফায়েজ(লিডারশীপ) এবং রাঙ্গা অরেগোডা (লিডারশীপ)।

বাংলাটিভি/রাজ

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button