দেশবাংলা

কোনো জটিলতা ছাড়াই ভাসানচরে রোহিঙ্গারা

অবশেষে কোনো রকম জটিলতা ছাড়াই রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর করা হলো। প্রথম দফায় শুক্রবার এক হাজার ৬’শ ৪২ জনকে স্থানান্তর করা হয়। রোহিঙ্গাদের সুরক্ষিত জীবনমান নিশ্চিত করতেই সরকার ভাষানচরে নিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

কক্সবাজারের উখিয়া থেকে গতকাল সড়কপথে চট্টগ্রাম, এরপর আজ নৌপথে রোহিঙ্গাদের নেয়া হয় ভাসানচরে। যারা স্বেচ্ছায় যেতে রাজি কেবল তাদেরকেই তালিকাভুক্ত করা হয়।

শুক্রবার সকালে ৫টি জাহাজে করে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থেকে যাত্রা করে বেলা ২টার দিকে ভাসানচরে পৌঁছায় রোহিঙ্গারা। নৌ-বাহিনীর ৪টি এলসিইউ এবং সেনাবাহিনীর একটি জাহাজে ভাসানচর পৌঁছান ১ হাজার ৬শ’৪২ রোহিঙ্গা।

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসার ৩৯ মাস পর তাদের স্থানান্তর করা হচ্ছে। এ জন্য ২৩শ’ কোটি টাকা খরচ করে সেখানে তৈরি করা হয়েছে আধুনিক সুযোগ-সুবিধাসহ ১২০টি ক্লাস্টার হাউস। নতুন আশ্রয় পেয়ে খুশি রোহিঙ্গারাও।

এদিকে, রোহিঙ্গারা ভাষানচরে ভালো থাকবেন বলে জানালেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। আর প্রথম ধাপের পুনর্বাসনের পর বাকীরাও দ্রুত যেতে আগ্রহী হবেন, এমন আশাবাদের কথা জানালেন, নৌবাহিনীর রিয়ার এডমিরাল মোজাম্মেল হক।

প্রথম ধাপে ভাসানচর যাওয়া রোহিঙ্গাদের রাখা হবে ৫ থেকে ১১ নম্বর ক্লাস্টারে। আপাতত কয়েক মাস তাদের রান্না করা খাবার সরবরাহ করবে একটি এনজিও। তাদের নিরাপত্তায় ইতোমধ্যেই ভাসানচরে পৌঁছে গেছে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরাও।

২০১৭ সালে আগস্টের শেষ সপ্তাহে অব্যাহত দমন-নিপীড়নের মুখে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় ১১ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা। যার মধ্যে দেড় লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরের পরিকল্পনা নেয় সরকার।

হাকিম মোড়ল, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button