অন্যান্যবাংলাদেশ

পানি ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনায় একশ বছর-মেয়াদী ডেল্টা প্ল্যান

দীর্ঘ মেয়াদী সমন্বিত পানি ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনায় একশ বছর-মেয়াদী ‘বাংলাদেশ ডেল্টা প্ল্যান-২১০০’ সরকারের যুগান্তকারী একটি উদ্যোগ। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলা করে দেশকে এগিয়ে নিতে প্রণয়ন করা হয়েছে এ পরিকল্পনা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন এটি যথাযথভাবে বাস্তবায়িত হলে দেশের পক্ষে টেকসই উন্নয়ন ও অগ্রগতির মাইলফলক স্পর্শ করা সহজ হবে।

স্বাধীনতার পর মাত্র সাড়ে তিন বছর সময় পেয়েছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সোনার বাংলা গড়ার জন্য বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগের কথা মাথায় রেখে পানিসম্পদ উন্নয়ন খাতে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছিলেন তিনি।  স্বল্প সময়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড গঠনের পাশাপাশি, যৌথ নদী কমিশন, হাওড় উন্নয়ন বোর্ড ও নারায়ণগঞ্জ ড্রেজার পরিদপ্তর গঠনেরও উদ্যোগ নেন বঙ্গবন্ধু।

তার স্বপ্নের সোনার বাংলাকে বাস্তবে রূপ দিতে, বাংলাদেশ ডেল্টা প্ল্যান বা ব-দ্বীপ পরিকল্ননা-২১০০ প্রণয়ন করেছে বর্তমান সরকার। বন্যা, নদীভাঙন, নদী ব্যবস্থাপনা, নগর ও গ্রামে পানি সরবরাহ, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এবং বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও নিষ্কাশন ব্যবস্থাপনার দীর্ঘমেয়াদী কৌশল হিসেবে ২০৩০ সালের মধ্যে বাস্তবায়নের জন্য ৮০টি প্রকল্প নিচ্ছে সরকার।

এতে ব্যয় হবে প্রায় ৩ হাজার ৭০০ কোটি ডলার। এ ছাড়াও, পানিসম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহার ও সংরক্ষণের জন্য আরও বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকারের ধারাবাহিক মেয়াদে। ডেল্টাপ্ল্যানে যুক্ত পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব কবির বিন আনোয়ার বলেন, এটি বাস্তবায়িত হলে উপকূলে নতুন ভূমি জাগবে। বাড়বে দেশের আয়তন।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক এ. এম. আমিনুল হক জানান, দেশের পানিসম্পদের সামগ্রিক উন্নয়নে সরকারের মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে অংশ নিয়েছেন তারা।

সংশ্নিষ্টদের মতে, ২১০০ সালে বাংলাদেশ কোন অবস্থানে থাকবে, তা ব-দ্বীপ পরিকল্পনায় বলা হয়েছে। পৃথিবীতে এত দীর্ঘ সময়ের পরিকল্পনা আর কোনো দেশ করেনি।  পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনা সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হলে দেশ কৃষিতেও অনেক এগিয়ে যাবে।

আসাদ রিয়েল, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button