বাংলাদেশঅন্যান্য

দেশের জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে অগ্রণী সরকার

গত এক যুগ ধরে দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি, জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায়ও অগ্রণী ভূমিকা রাখছে সরকার। জীব বৈচিত্র্য সংরক্ষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিভিন্ন উদ্যোগকে প্রশংসনীয় বলে উল্লেখ করেছে বিভিন্ন পরিবেশবাদী সংস্থা।

সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত পদক্ষেপগুলো উদাহারণ হিসেবে নিতে পারে অনেক দেশ।

প্রাণ-প্রকৃতি সংরক্ষণে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছিলেন বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৭৪ সালেই তিনি প্রণয়ন করেন বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইন। যার মাধ্যমেই বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে বাংলাদেশে সূচিত হয় নতুন অধ্যায়।

তারই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে বাংলাদেশের সংবিধানের ১৮-ক অনুচ্ছেদে জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ বিষয়ক ধারা যুক্ত করে; যাতে রাষ্ট্র প্রতিটি নাগরিককে প্রাকৃতিক সম্পদ, জীববৈচিত্র্য, জলাভূমি, বন ও বন্যপ্রাণীর সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা বিধান করতে বলা হয়েছে।

যে ক’টি দেশ জৈব বৈচিত্র্য সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক কনভেনশনটি বাস্তবায়নের জন্য আইন কার্যকর করেছে, তার মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। পাশাপাশি, দেশের জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণের জন্য সরকার বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইন-২০১২ এবং বাংলাদেশ জীববৈচিত্র্য আইন-২০১৭ও প্রণয়ন করে।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন জানান, টেকসই উন্নয়নের জন্য জীববৈচিত্র্য রক্ষায় জরুরি পদক্ষেপের বিষয়ে বর্তমান সরকার ‘সম্পূর্ণরূপে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ’। তিনি বলেন, এসব জীববৈচিত্র্য রক্ষায় সরকারের উদ্যোগে জনগণকে সম্পৃক্ত করে বিভিন্ন কার্যক্রমও গ্রহণ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, জীববৈচিত্র্যের বিপর্যয়ে সৃষ্ট পরিবেশের ভারসাম্যহীনতা মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত পদক্ষেপগুলো সমগ্র বিশ্বে মডেল হিসেবে গৃহীত হবে।

আসাদ রিয়েল, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button