দেশবাংলাজনদুর্ভোগদুর্ঘটনা

শেরপুরে ব্রহ্মপুত্রের ভাঙনে হুমকির মুখে ফসলি জমি ও স্থাপনা

শেরপুর সদর উপজেলার চরাঞ্চলের বেশ কয়েকটি এলাকায়, পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদে ভাঙন দেখা দিয়েছে। এতে হুমকির মুখে পড়েছে অন্তত: ছয় গ্রামের ফসলি জমি,সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,মসজিদ ও বাড়িঘর। ভাঙন রোধে দ্রুত পদক্ষেপ না নেয়া হলে, আরও বড় বিপরযয়ের আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

শেরপুর সদর উপজেলার চরাঞ্চলের বুক চিড়ে বয়ে চলেছে ব্রক্ষপুত্র নদী। এর দুই পাশে বণ্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ না থাকায়, ব্রক্ষপুত্রের ভাঙ্গনে প্রতি বছরই নদী গর্ভে বিলীন হচ্ছে ফসলি জমি,বাড়িঘরসহ নানা স্থাপনা। এ বছরও বর্ষার শুরুতেই এ নদীর তীব্র ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। এতে প্রতিদিনই বিলীন হয়ে যাচ্ছে একরের পর একর আবাদী জমি।

ইতোমধ্যে শেরপুর সদর উপজেলার চরপক্ষীমারী ইউনিয়নের চুনিয়ারচর, ভাগলগড়,জঙ্গলদি,বেপারীপাড়া,ডাকপাড়া,কামারেরচর ইউনিয়নের ৬ নম্বর চরসহ, ৬টি গ্রামের অনেকেই তাদের বাড়ি-ঘর সড়িয়ে অন্যত্র চলে গেছেন। নদীভাঙন অব্যাহত থাকলে চুনিয়ারচর গ্রামের ৩টি মসজিদ,মাদ্রাসা ও একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নদী গর্ভে চলে যাবে বলে আশংকা স্থানীয়দের।

 জেলা প্রশাসক মোমিনুর রশীদ ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন কোরে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। একই সাথে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে যোগাযোগ কোরে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশও দেন তিনি।

 নদী এভাবে ভাঙন অব্যাহত থাকলে এসব গ্রামের বাড়িঘর ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান হুমকির পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে কয়েক হাজার পরিবার । তাই ভাঙন রোধে দ্রুত পদক্ষেপ চেয়েছেন স্থানীয়রা।

 ডেস্ক রিপোর্ট/ বাংলা টিভি/এস

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button