fbpx
বাংলাদেশঅপরাধআইন-বিচারআওয়ামী লীগরাজনীতি

গুজব ছড়িয়ে পড়ার ক্ষেত্রে অনলাইন সামাজিক মাধ্যমও দায় এড়াতে পারে না: তথ্যমন্ত্রী

কুমিল্লায় পূজামন্ডপে যে কোরআন রেখেছে সে এবং সারাদেশে ঘটে যাওয়া সাম্প্রদায়িক ঘটনার জন্য যাচাই-বাছাই ছাড়া যারা পরিস্থিতি তৈরি করল তারা এবং একইসঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমও দায়ী বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

রোববার দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সম্পাদক ফোরামের সঙ্গে বৈঠক শেষে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন যে কোরআন রেখেছে, সে দায়ী, যে করিয়েছে, সেও দায়ী। যারা পোস্টের পরিপ্রেক্ষিতে যাচাই-বাছাই না করে পরিস্থিতি তৈরি করল, তারাও দায়ী। যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করা হলো তারাও দায়ী।

তিনি বলেন, ফেসবুকে ফেক (ভুয়া) পোস্ট দেওয়ার জন্য আমাদের দেশে যেসব ঘটনা ঘটেছে, সেগুলোর দায় ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বা সংশ্লিষ্ট সোশ্যাল মিডিয়া কর্তৃপক্ষ এড়াতে পারে না।

ফেসবুকে ফেক পোস্ট নিয়ে হাছান মাহমুদ আরও বলেন, এ সপ্তাহেই আমরা বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কমিউনিকেট করব। একইসঙ্গে আইএমইডির সঙ্গেও যোগাযোগ করব।কুমিল্লার ঘটনাটি যদি সোশ্যাল মিডিয়ায় (সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম) আপলোড না হতো, তাহলে দেশে এমন পরিস্থিতি তৈরি হতো না। পীরগঞ্জের ঘটনাও সোশ্যাল মিডিয়ার কারণে ঘটেছে।

সরকার সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ন্ত্রণ করতে চায় না জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আগেও বিভিন্ন ঘটনায় সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে এমন ঘটনা ঘটানো হয়েছে। আমরা অবশ্যই সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ন্ত্রণ করতে চাই না। তবে সবকিছুই এমনভাবে পরিচালনা করা উচিত, যাতে সেটি খারাপ কাজে ব্যবহার করা না হয়।

বাংলাটিভি/শহীদ

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button