দেশবাংলা

পলাতক থেকেই জামিন পেয়েছেন দণ্ডপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান এনামউদ্দিন!

বাড়িতে ঢুকে নির্যাতন ও জবর দখলের মামলায় নিম্ন আদালতে ১৬ মাসের জেল হওয়ার পর প্রায় মাসখানেক পলাতক ছিলেন এনামউদ্দিন।

মঙ্গলবার আইনজীবীর মাধ্যমে জামিন আবেদন করলে তাকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত। তবে নানা নাটকীয় ঘটনা শেষে জর্জকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে বেরিয়ে গেছেন তিনি।

এনামউদ্দিন প্রবাসী অধ্যুষ্যিত মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর কাঠালতলী ইউনিয়নের আলোচিত চেয়ারম্যান। তার বিরুদ্ধে হত্যা, গুম, প্রবাসী নির্যাতন, নারী নির্যাতন, মাদক, জমি দখল, সংরক্ষিত বনের গাছ উজাড়সহ অভিযোগের শেষ নেই এলাকাবাসীর।

অভিযোগ রয়েছে, সম্পত্তির লোভে নিজের চাচাকে পর্যন্ত ছাড় দেননি। গাছে বেঁধে নির্যাতন করে চাচা মাওলানা আব্দুল হেকিমসহ তার পরিবারকে করেছেন এলাকা ছাড়া।

কাঠালতলীর প্রবীণ ইউপি সদস্য মকবুল আলী। তার সাথে ব্যক্তিগত বিরোধ নেই এনামউদ্দিনের। তবে এনামের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন মকবুল। কারণ তৃতীয় একজন ব্যক্তির সাথে মকবুল আলীর জমিজমা সংক্রান্ত জটিলতায় মকবুলসহ তার পরিবারকে মারধর করেছেন এনামউদ্দিন। এ ঘটনার পর গত ১৪ বছর ধরে এনামের নানা হুমকি আর ভয়ভীতির মধ্যে এলাকায় বাস করছেন বৃদ্ধ মকবুল আলী। তবে সম্প্রতি আদালতের রায়ে এনামউদ্দিনের ১ বছর ৬ মাস জেল হলে মিলেছিল স্বস্তি। কিন্তু পলাতক থেকেই জর্জকোর্ট থেক জামিনে বেরিয়ে গেছেন এনামউদ্দিন। চেয়ারম্যান এনামউদ্দিনের বিরুদ্ধে আরও অনেক গুরুতর অভিযোগ রয়েছে।

মাদক ব্যবসা, প্রবাসীর বউ নির্যাতন, এনজিওর জমি দখল, মাধবকুণ্ড ইকোপার্কের সরক্ষিত বনায়নের গাছ কেটে সাবাড়সহ প্রায় ২ ডজন অভিযোগ পাওয়ায় গেছে এনামউদ্দিনের বিরুদ্ধে। আর এসব ঘটনায় বড়লেখা থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে প্রায় ১ ডজন।

তবে এসব অভিযোগের ব্যাপারে সামান্য আক্ষেপ নেই এনামউদ্দিনের মধ্যে জানতে চাইলে বরং গর্ব করে বলেন, চেয়ারম্যান হিসেবে এসব করা তার দায়িত্বের মধ্যে পড়ে।

বাংলাটিভি/এবি||শামিউল শাওন||

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close