আওয়ামী লীগরাজনীতি

পিতার হত্যাকারীদের রায় কার্যকরের দাবি ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর

শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের সন্তান যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল তার পিতার হত্যাকারীদের বিচারের রায় কার্যকরের দাবি জানিয়েছেন। বৃহস্পতিবার (৭মে) গাজীপুরের হায়দারাবাদে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার এমপির ১৬তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত দোয়া মাহফিলে তিনি এ দাবি করেন।

প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, বিএনপি-জামায়াত সরকারের প্রত্যক্ষ মদদে ২০০৪ সালের এ দিনে কতিপয় দুর্বৃত্ত আমার পিতা শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার এমপিকে দিনে দুপুরে প্রকাশ্যে গুলি করে নির্মমভাবে হত্যা করে। এটি অত্যন্ত দুঃখজনক হত্যাকাণ্ডের এতো বছর পার হলেও সেই সকল সন্ত্রাসীদের আজও বিচারের রায় কার্যকর হয়নি।

আমি অবিলম্বে তাদের ফাঁসির রায় কার্যকরের দাবি জানাই। তিনি আরও বলেন, আর্দশের কখনো মৃত্যু হয় না। আমার পিতা শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার আমাদের মাঝে নেই। কিন্তু রয়েছে তার কর্ম, তার জীবনাদর্শ। তিনি ছিলেন সৎ, নির্লোভ নিরহংকার একজন নীতিবান মানুষ। তিনি সারাজীবনই সাধারণ মানুষের অধিকার আদায়ে সোচ্চার ছিলেন।

মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেওয়ায় তাকে অকালে মৃত্যুবরণ করতে হয়েছিল। প্রতিমন্ত্রী রাসেল বলেন, তবে তিনি বেঁচে আছেন, বেঁচে থাকবেন মানুষের অন্তরে। আমি মহান সৃষ্টিকর্তার নিকট আমার পিতার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি এবং দেশবাসীকে আমার পিতার জন্য দোয়া করতে বিনীত অনুরোধ করছি।

করোনাভাইরাসের কারণে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার এমপির শাহাদাত বার্ষিকীর সকল ধরনের আনুষ্ঠানিকতা স্থগিত করা হয়। তবে পারিবারিকভাবে টঙ্গী-গাজীপুর-২ আসনের সর্বত্র সকাল থেকে দিনব্যাপী দুস্থ-গরিব-দুঃখী ও করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

এছাড়া সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সীমিত পরিসরে গ্রামের বাড়ি হায়দারাবাদে মরহুমের মাজার প্রাঙ্গনে কোরানখানি ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে মেহের আফরোজ চুমকি এমপিসহ গাজীপুরের অন্যান্য জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

মোঃ তাওহীদ কবির, টঙ্গী প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close