অপরাধবাংলাদেশ

সুশাসনের অভাবে কমছে না স্বাস্থ্য খাতের দুর্নীতি

করোনা মহামারি শুরুর পর থেকে স্বাস্থ্যখাতে নানা অনিয়ম-দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার বিষয়টি এখন আলোচনায়। দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা টিআইবির জরিপ ও দুদকের অনুসন্ধানেও বেরিয়ে এসেছে দুর্নীতির নানা তথ্য। তবে, বিশিষ্টজনেরা বলছেন, সুশাসনের ঘাটতির কারণে কমছে না স্বাস্থ্য খাতের দুর্নীতি। অন্যদিকে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে দুর্নীতির সাথে জড়িত কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

করোনা মহামারী শুরুর পর থেকেই স্বাস্থ্য খাতে নানা অনিয়ম দুর্নীতি আর অব্যবস্থাপনার বিষয়টি আলোচনায় চলে আসে। সম্প্রতি দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, দেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের কেনাকাটায় দুর্নীতির তথ্য বেরিয়ে আসে।

এর মধ্যে এ ক্যাটাগরির যন্ত্রপাতির মূল্যে সরবরাহ করা হয়েছে সি ক্যাটাগরির যন্ত্রপাতি। কখনো কখনো দেশে থেকেই যন্ত্রপাতি সরবরাহ করে ট্যাগ লাগিয়ে দেয়া হয়েছে কোনো নামকরা বিদেশি কোম্পানির।

চলতি বছরের শুরুতে, স্বাস্থ্য খাতে কেনাকাটা–নিয়োগসহ দুর্নীতির ১১ খাত চিহ্নিত করে দুদক। এসব দুর্নীতি প্রতিরোধে ২৫ দফা সুপারিশও করে সংস্থাটি। তবে, স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতির মধ্যে মধ্যে সাম্প্রতিক সময়ে সব চেয়ে আলোচনায় এসেছে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পর্দা কেলেঙ্কারি এবং মুগদা হাসপাতালের মাস্ক কেলেঙ্কারি ঘটনা। বিষয়টি ইতিমধ্যে অনুসন্ধান করছে দুদক।

এছাড়া, এ বছরের শুরুর দিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মেডিকেল এডুকেশন শাখার হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা মো.আবজাল হোসেনের বিরুদ্ধে দুদকের অনুসন্ধান থেকে জানা যায়, আবজাল দম্পতির নামে রাজধানীর উত্তরায় ১৩ নম্বর সেক্টরের ১১ নম্বর রোডে তিনটি পাঁচতলা বাড়ি রয়েছে।

উত্তরার ১১ নম্বর রোডে রয়েছে একটি প্লট। এ ছাড়া রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় ও ফরিদপুরের বিভিন্ন জায়গায় রয়েছে তাঁদের অঢেল সম্পদ। অস্ট্রেলিয়ায় যে বাড়ি রয়েছে তারও তথ্য পেয়েছে দুদক।

দুর্নীতির কারণে স্বাস্থ্যখাতে টেকসই সেবার মানোন্নয়ন সম্ভব হচ্ছে না বলে জানান, টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান। আর আর বড় দুর্নীতিবাজরা ধরা ছোঁয়ার বাইরে থাকায় স্বাস্থ্য খাতের দুর্নীতি কমানো সম্ভব হচ্ছে না বলে মনে করেন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি ডাঃ ইকবাল আসলান।

এদিকে, দুর্নীতিবাজরা যত শক্তিশালী হোক না কেন কাউকে ছাড় দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র ডাঃ আয়েশা সিদ্দিকা।সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে এ খাতে দুর্নীতি বন্ধের কোন বিকল্প নেই বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

বুলবুল আহমেদ, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close