ঢালিউডবিনোদন

‘সরকারের সহায়তা না পেলে বন্ধ হয়ে যাবে স্টার সিনেপ্লেক্স’

সরকারের পক্ষ থেকে কোনো সহায়তা না পেলে বন্ধ হয়ে যাবে দেশের প্রথম মাল্টিপ্লেক্স স্টার সিনেপ্লেক্স। বুধবার হলটির মহাখালী শাখায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমনটিই জানিয়েছেন, প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার মাহবুব রহমান রুহেল।

সংবাদ সম্মেলন থেকে তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঁচটি দাবি তুলে ধরেন, যার মধ্যে আর্থিক সুবিধা প্রদান ছাড়াও উপমহাদেশীয় ভাষার চলচ্চিত্র আমদানির কথাও রয়েছে।

এদিকে, দেশের করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর মার্চ মাসেই সাধারণ ছুটি ঘোষণা হয়। সাধারণ ছুটি শেষ হওয়ার পর অফিস-আদালত সব খুলে গেছে, চলছে গণপরিবহনও। শপিং মল, রেস্টুরেন্ট, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট, পর্যটন, ধর্মীয় উপসনালয়সহ প্রায় সবকিছু খুলে দেওয়া হলেও সিনেমা হল খোলেনি এখনো।

সংবাদ সম্মেলনে রুহেল বলেন, ‘দর্শকদের চাহিদার কথা বিবেচনা করে আমরা ২০১৮ ও ২০১৯ সালে উচ্চ সুদে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে স্টার সিনেপ্লেক্সের তিনটি নতুন শাখা চালু করি। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় আমাদের কোনো আয় নেই। ঋণের সুদ ও কর্মীদের বেতন চালিয়ে নেওয়া রীতিমত অসম্ভব হয়ে পড়েছে।

এ অবস্থায় সিনেমা হল চালু না হলে এবং সরকারের কাছ থেকে জরুরি আর্থিক সহায়তা না পেলে আমাদের হলগুলো স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়া ছাড়া কোনো উপায় থাকবে না।’ শপিং মল কর্তৃপক্ষের কাছে করোনাকালীন ভাড়া মওকুফ এবং পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত অর্ধেক ভাড়া নেওয়ার অনুরোধ জানান। একইসঙ্গে প্রযোজক সমিতির কাছে নতুন ছবি সরবরাহের অনুরোধ রাখেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঁচটি দাবি তুলে ধরেন রুহেল। দাবিগুলো হলো, নগরবাসীর বিনোদনের জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনতিবিলম্বে সিনেমা হলসমূহ খুলে দেওয়া, জরুরি আর্থিক সহায়তা কিংবা প্রণোদনা তহবিল ঘোষণা, সিনেমা হলের টিকিটের ওপর সব ধরনের মূসক ও কর মওকুফের সুযোগ প্রদান, সুদবিহীন ঋণ প্রদানের অনুমোদন এবং উপমহাদেশীয় ভাষার চলচ্চিত্র শর্তহীনভাবে আমদানির অনুমতি প্রদান।

মাহবুব রহমান রুহেল বলেন, আমেরিকান সরকার মুভি থিয়েটারসহ ক্ষতিগ্রস্ত খাতের জন্য ২ ট্রিলিয়ন ডলার সহায়তা বিল পাস করেছে। ফ্রান্সের সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ৫ মিলিয়ন ইউরো ও যুক্তরাজ্য দিয়েছে ২ বিলিয়ন ডলার। করোনা পরবর্তী সময়ে সামাজিক দূরত্ব মেনে সিনেমা হল খুলে দিলে পরিচালন ব্যয় বেড়ে যাবে। তাই টিকেটের ওপর সব ধরনের কর মওকুফ করা হোক। এছাড়া সুদবিহীন ঋণসহ আর্থিক সহায়তা জরুরি বলেও জানান তিনি।

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button