আন্তর্জাতিক

করোনা: বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর হার কমে আসছে

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে মৃত্যুর হার আগের চেয়ে কমে আসছে; গত একদিনে মারা গেছে ৩ হাজার মানুষ। এনিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা আড়াই লাখ ছাড়ালো। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে সাড়ে ৩৬ লাখ, এরমধ্যে চিকিৎসায় সুস্থ হয়েছেন প্রায় ১২ লাখ মানুষ।

মহামারি করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্র মৃত্যুর নিম্নগামী ধারা ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে। গত কিছুদিন ধরে দেশটিতে মৃত্যুর হার ক্রমশ কমতির দিকে। গত ২৪ ঘন্টায় সেখানে কোভিড-১৯ মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৩২৪ জনের।

তবে মোট ৬৮ হাজার ৬৮৯ মৃত্যু নিয়ে এখনো শীর্ষে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। টানা ৮ সপ্তাহ পর একদিনে ইতালি ও স্পেনে দৈনিক মৃত্যু নেমেছে ২শ’র নিচে। ইতালিতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। ভাইরাসটির তাণ্ডব দুর্বল হওয়ায় শিথিল করা হয়েছে লকডাউন।

তবে ভাইরাসের প্রকোপ পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত সবাইকে পাবলিক পরিবহনসহ বাইরে মাস্ক ব্যবহার করতে এবং নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হয়েছে। ফ্রান্সে গত একদিনে প্রাণহানি হয়েছে ৩০৬ জনের। ইউরোপের অন্যান্য দেশের তুলনায় যুক্তরাজ্যেও মৃত্যুহার আগের চেয়ে কমে এসেছে।

২৪ ঘন্টায় প্রাণহানি ২৮৮ জনের। মোট মারা গেছেন প্রায় ২৯ হাজার। এছাড়া, গত দুইদিনের হিসেবে সবচেয়ে বেশি ১০ হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছে রাশিয়ায়। এ নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্ত ১ লাখ ৪৫ হাজার, এ পর্যন্ত মারা গেছেন প্রায় দেড় হাজার মানুষ।

এদিকে, চীনের গবেষণাগারে করোনাভাইরাসের উৎপত্তি হয়েছে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও’র এমন বক্তব্যের প্রমাণ চেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সেইসাথে এটিকে অনুমান নির্ভর বলেও আখ্যা দেয়া হয়েছে। সোমবার জেনেভায় অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান ডব্লিউএইচও’র জরুরি পরিস্থিতি বিষয়ক বিশেষজ্ঞ ডা. মাইক রায়ান।

করোনা আক্রান্ত দেশের তালিকায় অন্যতম ইরানে শিথিল করা হচ্ছে লকডাউন। দেশটিতে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান চালু ও মসজিদ খুলে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার। সৌদি আরবে ২৯ এপ্রিল থেকে ১৩ মে পর্যন্ত সবধরনের পাইকারি ও খুচরা পণ্য বিক্রয়কেন্দ্রগুলো খোলা থাকবে। বাণিজ্যিক কার্যক্রম চলবে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত। এছাড়া সংযুক্ত আরব আমিরাত, লেবানন, ইসরায়েলের ৮০ ভাগ স্কুল খুলে দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, করোনাভাইরাসের টিকা উদ্ভাবনে ৮ বিলিয়ন ডলার আর্থিক সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বিশ্ব নেতারা। সোমবার আয়োজিত এক ভার্চুয়াল সম্মেলনে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সম্মেলনে জাতিসংঘের মহাসচিব বলেন, করোনার টিকা তৈরি ছাড়া স্বাভাবিক জীবনে ফেরা সম্ভব নয়।

যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া এই সম্মেলনে অংশ নেয়নি। করোনা মোকাবিলায় একশো কোটি ডলার করে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ইউরোপীয় কমিশন ও নরওয়ে। ফ্রান্স, সৌদি আরব ও জার্মানি ৫০ কোটি ডলার করে দিতে চেয়েছে।

৩৮ কোটি ৮০ লাখ ডলার দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। সম্মেলনের সহ-আয়োজকের ভূমিকা পালন করে যুক্তরাজ্য, কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান, নরওয়ে ও সৌদি আরব।

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close