আন্তর্জাতিকমধ্যপ্রাচ্য

ইরানের হামলায় ৮০ মার্কিন সেনা নিহত, আহত ২০০

ইরানের কমান্ডার মেজর জেনারেল কাসেম সোলেইমানিকে হত্যার জবাবে ইরাকের আল-আসাদ ও আরবিল মার্কিন সেনা ঘাঁটিতে রকেট হামলা চালিয়েছে ইরান। বুধবার বাংলাদেশ সময় ভোর সাড়ে ৪টার দিকে হামলা চালানো হয়।

এ ঘটনায় অন্তত ৮০ মার্কিন সেনা নিহত আরও ২০০ জন আহত হয়েছেন, বলে ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের খবরে দাবি করা হয়েছে। ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে হামলার পর, হোয়াইট হাউসের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। যদিও হামলার পর, এক টুইটে ট্রাম্প মন্তব্য করেন, ‘অল ইজ ওয়েল’।

৮ জানুয়ারি (বুধবার) ভোররাতে ইরাকে দুটি মার্কিন সেনাঘাঁটিতে এক ডজনেরও বেশি মিসাইল ছোড়ে ইরান। যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে হামলার শিকার হওয়ার কথা জানানো হলেও হতাহতের বিষয়ে অফিসিয়ালি কিছুই বলা হয়নি। এদিকে, রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে দেওয়া এক বিবৃতিতে ইরান জানায়, তাদের শীর্ষ সামরিক কমান্ডার কাসেম সোলেইমানিকে হত্যার প্রতিশোধ নিতেই এই হামলা।

একইসঙ্গে যেসব দেশ তাদের ঘাঁটি যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তুলে দিয়েছে, তাদের প্রতিও হুঁশিয়ারি দিয়েছে তেহরান। বলা হয়েছে, যে দেশের ভূমি থেকে ইরানের ওপর হামলা চালানো হবে, সেই দেশকে শত্রু দেশ চিহ্নিত করে হামলা চালানো হবে। এমনকি খোদ যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে হামলার হুমকি দিয়েছে ইরান।

এদিকে, লেবাননের সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, যুক্তরাষ্ট্র পাল্টা আঘাত করলে তারা ইসরায়েলে হামলা চালাবে। এছাড়া, ইরানের আকাশসীমা এড়িয়ে চলার ঘোষণা দিয়েছে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও চীন।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) ইরাক সরকারের রাষ্ট্রীয় আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে দেশটি সফরকারী ইরানি জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যা করে সন্ত্রাসী মার্কিন সেনারা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে চালানো ওই হামলায় ইরাকের জনপ্রিয় স্বেচ্ছাসেবী বাহিনী হাশদ আশ-শাবি’র সেকেন্ড-ইন-কমান্ড আবু মাহদি আল-মুহান্দিস এবং দু’দেশের আরো ৮ সেনা শাহাদাতবরণ করেন।

ইরাক ও ইরানের বহু শহরে অসংখ্যবার জানাযার নামাজ শেষে মঙ্গলবার রাতে জেনারেল সোলাইমানির লাশ তার জন্মভূমি ইরানের কেরমান শহরে দাফন করার কয়েক ঘণ্টা পার মার্কিন ঘাঁটিতে হামলা চালানো হলো।

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close