অন্যান্যবাংলাদেশ

কৃত্রিম সংকটে বেড়েছে মাস্কের দাম

ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপের সময় কৃত্রিম সংকট তৈরি করে হঠাৎ বাড়ানো হয়েছিল ওডোমস মসকিটোর দাম। এবার করোনাভাইরাসের খবরে বেড়েছে মাউথ মাস্কের, অ্যান্টি ডাস্ট মাস্কের (সার্জিক্যাল মাস্ক) দাম।

চীনে নভেল করোনাভাইরাসের খবরে মানুষের মাঝে হঠাৎ বেড়ে গিয়েছে মাস্কের ব্যবহার। সেই সুযোগে সংকটের কথা বলে আবারও একই কাজ করল ফার্মেসি ব্যবসায়ীরা। ‘যোগান নেই অজুহাতে’ বেড়েছে মাউথ মাস্কের, অ্যান্টি ডাস্ট মাস্কের (সার্জিক্যাল মাস্ক) দাম। সর্বোচ্চ ১৭৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে প্রতিটি মাস্ক।

রাস্তায়, ফুটপাতে, বিভিন্ন অনলাইন শপে মাস্ক বিক্রি হলেও ফার্মেসিগুলোতে মাস্কের সংকট দেখা দিয়েছে। সম্প্রতি করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বজুড়ে মাস্কের ব্যবহার বেড়েছে গবেষকরা বলছেন, করোনাভাইরাসের আকার ১৩৫ ন্যানো, যা ভালোমানের মাস্ক ব্যবহারের মাধ্যমে প্রতিরোধ করা যায়। এ কারণে বাংলাদেশেও বেড়েছে এর চাহিদা।

সরেজমিনে রাজধানীর কয়েকটি ফার্মেসি ও অনলাইন শপিং ওয়েবে গিয়ে দেখা গেছে, ডিস্পোজেবল নন ওভেন ফ্যাব্রিক মাস্ক বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকায়, কটন মাস্ক ১২০ টাকা, স্পঞ্জ অ্যান্টি ডাস্ট মাস্ক ৫০ টাকা, এন-৯৫ (৮২১০) মাস্ক ২৫০ টাকা, এন-৯৫ (৮১১০এস) ১৮০ টাকা, পিএম-২.৫ মাউথ মাস্ক ১২০ টাকা, সাওমি এয়ারপপ থ্রি-সিক্সটি ডিগ্রি অ্যান্টি ফগ মাস্ক ৩৫০ টাকা, সাওমি স্মার্টলি ফিল্টার মাস্ক ৪৫০ টাকা এবং সাওমি পিএম-২.৫ লাইট ওয়েট মাস্ক বিক্রি হচ্ছে ১৭৫০ টাকা।

বিক্রেতারা বলছেন, অতিরিক্ত চাহিদার কারণে মাস্কের সংকট দেখা দিয়েছে, এই সুযোগে অনেকেই বেশি দামে মাস্ক বিক্রি করছেন। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারের মানসম্মত সব মাস্ক চীন থেকে আমদানি করা হয়। শুনেছি বর্তমানে চীন নিজেদেরই চাহিদা মেটাতে পারছে না।

এ কারণে বাংলাদেশেও এই মাস্কের আমদানি কমেছে। একই অবস্থান অনলাইনের কেনাকাটার ওয়েবসাইট ও পেজগুলোতে। রাজধানীর তোপখানা রোডে কয়েকটি সার্জিক্যাল মাস্কের পাইকারি বিক্রেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত ১৫ দিনে তাদের মাস্ক বিক্রি বেড়েছে ৬-৭ গুণ।

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button