দেশবাংলা

নেই কোনো স্মৃতি চিহ্ন ভাষা শহীদ বরকতের

ভাষা আন্দোলনের ৬৮ বছরেও ভাষা শহীদ আবুল বরকতের নামে নামকরণ করা হয়নি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো হলের। গাজীপুরে মায়ের কবর ছাড়া, আর কোন স্মৃতি চিহ্ন নেই তার। আর এ এলাকার শিক্ষার্থীরাই জানে না ভাষা শহীদ বরকতের বাড়ি কোথায়, অথবা তিনি কোন আন্দোলনে শহীদ হয়েছেন।

বায়ান্নর রাষ্ট্র ভাষা বাংলা প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের সময় পুলিশের গুলিতে প্রাণ দিয়েছেন, ভারতের মুর্শিদাবাদের বাবলা গ্রামে জন্ম নেয়া আবুল বরকত। এ দেশের স্থায়ী বাসিন্দা হতে বায়ান্নর জানুয়ারি মাসে, শেষবারের মত মায়ের সাথে এসেছিলেন, গাজীপুরের বাগা পালের জমি কিনতে।

কেনা জমিতে তিনি বসবাস করতে না পারলেও, তাকে হারিয়ে তাঁর ছোট ভাইকে নিয়ে দীর্ঘদিন মা হাসিনা বেগম ছিলেন এখানেই। পরে ছেলের শোকে তিনিও ১৯৮২ সালের ২১ এপ্রিল না ফেরার দেশে চলে যান। তাকে শায়িত করা হয় চান্দনা এলাকায় নিজ ভূমিতে।

মায়ের কবর ছাড়া গাজীপুরের তেমন কোন স্মৃতি চিহ্ন নেই এ ভাষা শহীদের। তাই, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বরকতের নামে একটি হলের নামকরণ এবং  গাজীপুরে স্মৃতি যাদুঘর ও ভাস্কর্য নির্মাণের দাবি, শহীদ পরিবারের স্বজনদের।

গাজীপুর স্টেডিয়ামের নামকরন করা হয়েছে এ ভাষা শহীদের নামে। তবে এখানে শহীদের ঠিকানা অথবা সংক্ষিপ্ত কোন ইতহাস তুলে ধরা হয়নি। ফলে নতুন প্রজন্ম ভাষা শহীদের সঠিক ইতিহাস জানতে পারছে না।

এদিকে, শীগগিরই শহীদ বরকতের নামে স্টেডিয়ামে এস এম তরিকুল ইসলাম, একটি কর্ণার স্থাপনের কথা জানান, জেলার প্রধান অভিভাবক।

শুধু বছরের ফেব্রুয়ারি মাসেই নয়, পুরো বছর জুড়েই যেন ভাষা শহীদদের বীরত্বের কথা বাঙালী জাতী স্মরণ করে, এমন প্রত্যাশা শহীদ পরিবারের।

স এম সৌরভ সিকদার, গাজীপুর প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close