দেশবাংলা

তামাক চাষ বন্ধে সরকারিভাবে নেই কোনো বিধি-নিষেধ

তামাক চাষে ফসলি জমি, মানবদেহ ও পরিবেশের ক্ষতি জেনেও, বেশি লাভের আশায় রাজবাড়ীতে তামাক চাষে ঝুঁকছেন কৃষকরা। ক্ষতিকারক এ চাষ সরকারিভাবে নিষিদ্ধ না হওয়ায়, যেখানে সেখানে ও কৃষি জমিতে তামাক চাষ করছেন তারা। তামাকের বিভিন্ন কুফল তুলে ধরেও এ চাষ বন্ধ করতে পারেনি, জেলা কৃষি অফিস।

তামাক অত্যন্ত নেশাদায়ক ও বিষাক্ত দ্রব্য। তামাক দিয়ে সিগারেট, বিড়ি, চুরুট, হুঁক্কা ও অন্যান্য ধুমপান সামগ্রী তৈরী করা হয়। ধুমপান ছাড়াও তামাক দিয়ে তৈরী হয় জর্দ্দা ও গুল। তামাকের মূল নেশাদায়ক উপাদান নিকোটিন একধরনের বিষ।

এতো কিছুর পরও তামাক চাষ বন্ধে সরকারিভাবে নেই কোন বিধি নিষেধ। আর সেই সুযোগে সুবিধাভোগী কিছু অসাধু ব্যবসায়ীদের দেয়া লোভনীয় প্রলোভন ও আর্থিক সহযোগিতায় ক্ষতিকারক এই চাষ করছেন কৃষকরা।

কৃষি বিভাগের তথ্যমতে, এবছর রাজবাড়ীতে ৩০ হেক্টর জমিতে তামাক চাষ হয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ১০ হেক্টর, কালুখালীতে ৮ হেক্টর, বালিয়াকান্দিতে ৫ হেক্টর, গোয়ালন্দে ৫ হেক্টর ও পাংশা উপজেলায় ২ হেক্টর জমিতে। তবে সরকারি এ হিসেবের বাইরে ৩ গুণ বেশী জমিতে তামাক চাষ হচ্ছে বলে তথ্য রয়েছে।

মাঠ পর্যায়ে তামাক চাষের বিভিন্ন কুফল ও খারাপ দিক তুলে ধরে, কৃষকদের তামাক ছেড়ে অন্যচাষে উদ্বুদ্ধ করা হয় বলে জানান, জেলা কৃষি অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক গোপাল কৃষ্ণ দাস।

আগামী প্রজন্মকে সুস্থ-সবল রাখতে ক্ষতিকারক এ বিষবৃক্ষের চাষ নিষিদ্ধ হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন, সচেতন মহল।

শিহাবুর রহমান, রাজবাড়ী প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close