দেশবাংলা

প্রতিষ্ঠার ১২ বছরেও চালু হয়নি ইন্দুরকানী হাসপাতালটি

পিরোজপুরের ইন্দুরকানী হাসপাতালটি প্রতিষ্ঠার ১২ বছরেও চালু না হওয়ায়, স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত স্থানীয় ২ লক্ষাধিক মানুষ। উপজেলাবাসীকে সেবা নিতে যেতে হয় সদর কিংবা অন্য কোথাও। এ নিয়ে ক্ষোভের শেষ নেই স্থানীয়দের।

২০০২ সালে ৩টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠন করা হয় ইন্দুরকানী উপজেলা। এরপর সেখানে ৩১ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হয়। আর ২০০৮ সালে শুধুমাত্র আউটডোর সেবা দিয়ে সেটি চালু করা হয়। এরপর, ১২ বছরেও চালু হয়নি সেবা কার্যক্রম। ফলে, উপজেলার ২ লক্ষাধিক মানুষ চিকিৎসা সেবা থেকে আজও বঞ্চিত।

এ উপজেলার কেউ গুরুতর অসুস্থ হলে, কিংবা দূর্ঘটনা হলে তাদের পড়তে হয় মারাত্মক ভোগান্তিতে। এছাড়া ব্যবহার না হওয়ায়, নোংরা আর অপরিচ্ছন্ন হয়ে পড়েছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি। এমনকি নষ্ট হয়ে গেছে অধিকাংশ মালামাল।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানিয়েছেন, কমপ্লেক্সটিকে ৩১ থেকে ৫০ শয্যায় রুপান্তরিত করাসহ অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও মেরামতের কাজ শেষ হলেই, ইনডোর সার্ভিস চালু করতে পারবেন বলে জানালেন, ইন্দুরকানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক মেডিকেল অফিসারডাঃ সাকিল আহম্মেদ খান।

এদিকে, স্থানীয়দের দাবি সরকার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির সকল সমস্যা দূর করে, যত দ্রুত সম্ভব এর ইনডোর সেবা চালু করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবে।

ইমাম হোসেন, পিরোজপুর প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close