দেশবাংলা

সারাদেশে ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে করোনা পরিস্থিতি

দিন দিন করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করছে।বাড়ছে হোম কোয়ারেন্টিনে ও প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের রোগীর সংখ্যা।বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও।

নোয়াখালীর সেনবাগে কেশারপাড় ইউনিয়নে করোনা উপসর্গ নিয়ে মোঃ আক্কাস )নামে একজনের মৃত্যু হয়েছে।নিহত মো. উপজেলার কেশারপাড় ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের উন্দানিয়া গ্রামের মৃত আবদুল গোফরানের ছেলে ও পেশায় রাজমিস্ত্রী ছিলেন।  উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম মজুমদার  জানান,সকালে তিনি মারা গেছেন। তার শরীরে করোনার উপসর্গগুলো ছিল বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।

মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলায় করোনা উপসর্গ নিয়ে ৬০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ মারা গেছেন।তার মৃত্যুতে রাজৈর উপজেলা প্রশাসন মৃতের বাড়ি লকডাউন করেছে।নিহতের বাড়ি পাইকপাড়া ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামে।উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক মিঠুন বিশ্বাস জানান,তার নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

করোনা মোকাবেলায় লক্ষ্মীপুরে অনির্দিষ্টকালের জন্য লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছে।গেল রোববার জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।এই আদেশ অমান্য করলে কঠোর ব্যবস্থা নিবে জেলা প্রশাসন।এদিকে জেলার রামগঞ্জে একজন ও রামগতি উপজেলায় এক ব্যাক্তির শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলায় এসে মারা যাওয়া সেই নারী করোনভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন। দাফনের পর এ তথ্য জানা গেছে। মারা যাওয়া ওই নারীর নাম শিপনা আক্তার। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার রেইনা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।তিনি জানান, ৯ এপ্রিল ভোরে ৪০ বছর বয়সী শিপনা জ্বর ও সর্দি-কাশি নিয়ে মারা যান। ওই নারী ও তার স্বামী নারায়ণগঞ্জে থাকতেন।

চাঁদপুরে করোনায় ৬জন আক্রান্ত হয়েছে।গেল রোববার আইইডিসিআর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়।১২ এপ্রিল পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষার ভিত্তিতে এই ফলাফল ওয়েবসাইটে উল্লেখ করা হয়।সিভিল সার্জন মোঃ সাখাওয়াত উল্লাহ জানান, আক্রান্ত ৪জনের মধ্যে ৩ জন মতলব উত্তরের।অন্যজন চাঁদপুর সদরের।

পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে করোনা উপসর্গ নিয়ে ৫৫ বছর বয়সী একজনের মৃত্যু হয়েছে।গতরাতে রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে আইসোলেশনে থাকা এ ব্যক্তির মৃত্যুর হয়।সিভিল সার্জন কার্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক মোস্তফা কামাল এতথ্য নিশ্চিত করেছেন।তিনি জানান,মৃত ব্যক্তির বাড়ি কুষ্টিয়া।তবে তিনি শহরের ভেদভেদী এলাকায় থাকতো।

ঝালকাঠিতে শিশুসহ তিনজনের করোনা সনাক্ত হয়েছে।এতে আতঙ্কিত পুরো জেলা।এ খবরে সকালে পুলিশ সুপার ফাতিহা ইয়াসমিনের নেতৃত্বে শহরের বিভিন্নস্থান ঘুরে মানুষকে ঘরে পাঠান এবং দোকানপাট বন্ধের নিদেশ দেন। এছাড়া অকারণে বের হওয়ায় মোটরসাইকেল ও বাইসাইকেল আটক করে পুলিশ।

করোনার প্রতিরোধ ও সচেতনতা বাড়াতে ঝিনাইদহের ১১টি স্থানে চেকপোস্ট বসিয়েছে পুলিশ।প্রতিদিন সকাল ৮ টা থেকে সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত শহরের পায়রা চত্বর,হামদহ,আরাপপুরসহ বিভিন্ন স্থানে চেকপোস্ট বসানো হয়।

কুড়িগ্রামে গেল ২৪ ঘন্টায় ৫৯ জনসহ ২৫৪ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।এরা সবাই ঢাকা ফেরত।করোনা সন্দেহে এ পর্যন্ত জেলায় ১১২ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

করোনার ঝুঁকি এড়াতে টাঙ্গাইলে ৭ম দিনের মতো চলছে লকডাউন।লকডাউন কার্যকর করতে জেলায় ৫৪টি চেকপোষ্টে সর্বক্ষনিক পুলিশ নজরদারিতে রয়েছে।এদিকে জেলায় নতুন করে আরো ৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেন জেলা সিভিল সার্জন।

বাংলাটিভি/শহীদ

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close