বিশ্ববাংলা

এলব্রুস জয় করে রেকর্ড গড়লেন বাংলাদেশি ‘আকি’

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের বাউধরন গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী মৃত হাজি ইছকন্দর আলীর ছেলে যুক্তরাজ্য প্রবাসী ও পর্বতারোহী আখলাকুর রহমান (আকি রহমান) মাত্র ৮ ঘন্টা সময়ের মধ্যে জয় করলেন রাশিয়ার ইউরোপের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ এলব্রুস পর্বত।

ইংল্যান্ডের রেকর্ড সংখ্যক কম সময়ে (মাত্র ৮ ঘন্টায়) ইউরোপের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ এলব্রুস জয় করেন আখলাকুর রহমান। যা বিশ্বে আজও কোনো বাঙ্গালি করতে পারেনি। তিনি সর্ব প্রথম বাঙ্গালি। শুধু তাই নয়, প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) থেকে সুস্থ হওয়ার ৫ম দিনে এমন দুঃসাহসিক অভিযান সম্পূন্ন করেন আখলাকুর রহমান।

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) থেকে সুস্থ হয়ে পর্বতারোহী আখলাকুর রহমান পর্বত জয়ের ধারা অব্যহত রাখতে গত ৭ অক্টোবর রাশিয়ার ইউরোপের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ এলব্রুস পর্বত জয়ের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করেন। পর দিন ৮ অক্টোবর স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় রাশিয়ার এলব্রুস ক্যাম্পে যোগ দেন।

পরে ওই দিন রাত ১টায় এলব্রুস পর্বত জয়ের মিশন শুরু করে সকাল ৯টায় মিশন সম্পূন্ন করেন। মাত্র ৮ ঘন্টায় রাশিয়ার ইউরোপের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ এলব্রুস পর্বত জয়ের মধ্যে দিয়ে বাঙ্গালি পর্বতারোহীদের শীর্ষে নাম লেখান আখলাকুর রহমান। তবে তিনি বিশ^ জুড়ে আকি রহমান নামে পরিচিত।

জন্ম সূত্রে যদিও তিনি বাঙ্গালি তবে, আখলাকুর রহমান মাত্র দেড় বছর বয়সে পরিবারের সঙ্গে পারি জমান যুক্তরাজ্যের ইংল্যান্ডে। তাঁর শৈশব কেটেছে ইংল্যান্ডের ওল্ডহ্যাম শহরে। কিন্তু দেশের প্রতি রয়েছে তাঁর অশ্রু শ্রদ্ধা ও ভালবাসা। তাই তিনি বাঙ্গালি ঐতিহ্য ধরে রাখতে মাথায় গামছা বেঁধে পর্বত চূড়ায় ইংল্যান্ডের ও বাংলাদেশের যৌথ জাতীয় পতাকা গায়ে জড়িয়ে প্রদর্শন করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে আখলাকুর রহমানের খালাত ভাই জগন্নাথপুর পৌরসভার বাসিন্দা সামিনুর রহমান ভূঁইয়া বলেন, প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) থেকে সুস্থ হয়ে এধরনের সাফল্য সত্যিই অবিশ্বসকর। এই জয় শুধু তাহার নিজের নয়, এটি পুরো বাঙ্গালি জাতির জয়।

উল্লেখ্য, রাশিয়ার ইউরোপীয় অংশের দক্ষিণাংশে, জর্জিয়ার সাথে রাশিয়ার সীমান্তের ঠিক উত্তরে অবস্থিত একটি পর্বত। পর্বতটি ককেশাস পর্বতমালার সর্বোচ্চ এবং গোটা ইউরোপের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ। আজ থেকে প্রায় ২০ লক্ষ বছর আগে আগ্নেয় বিস্ফোরণের ফলে পর্বতটির জন্ম হয়েছিল।

আগ্নেয়গিরিটি বর্তমানে বিলুপ্ত, তবে বৃহত্তর ককেশাস অঞ্চলের ভৌগোলিক অস্থিতিশীলতার কারণে এ অঞ্চলে কিছুদিন পর পরই বড় আকারের ভূমিকম্প হয়ে থাকে। এলব্রুস পর্বতের দুইটি জ্বালামুখ আছে। একটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৫,৬৪২ মিটার (১৮,৫১০ ফুট) এবং অপরটি ৫,৫৯৫ মিটার (১৮.৩৫৫ ফুট) উঁচুতে অবস্থিত। পর্বতের উপরে বেশকিছু বিশালাকার হিমবাহ আছে যেগুলি থেকে পানি গলে কুবান ও অন্যান্য নদীতে পড়েছে।

গোবিন্দ দেব, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button